kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

একমাত্র ব্রিজ এক মাসেও মেরামত না হওয়ায় জনদুর্ভোগ চরমে

স্বরূপকাঠি (পিরোজপুর) প্রতিনিধি   

২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৩:৪৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



একমাত্র ব্রিজ এক মাসেও মেরামত না হওয়ায় জনদুর্ভোগ চরমে

পিরোজপুরের স্বরূপকাঠি পৌর শহর বন্দরের একমাত্র লোহার ব্রিজটি (ঢালাই স্লাব) এক মাস পূর্বে বাল্কহেডের ধাক্কায় বিধ্বস্ত হলেও এখনও তা সংস্কারের কোনো উদ্যোগ নেই। 

গত ১ আগষ্ট রাতে জনগুরুত্বপূর্ণ ওই ব্রিজটি বিধ্বস্ত হয়। ঘটনার দিনই ব্রিজটিতে গ্রিলের বেড়া দিয়ে লোক চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। বিকল্প হিসেবে ওই জায়গা থেকে ট্রলার ও নৌকার মাধ্যমে খেয়া পারাপারের ব্যবস্থা করা হয়। ওই ব্রিজ দিয়ে প্রতিদিন একটি কলেজ, দুইটি মাধ্যমিক ও ৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ দক্ষিণ জগন্নাথকাঠি ও উত্তর জগন্নাথকাঠি বন্দরের হাজার হাজার মানুষ যাতায়াত করে। ব্রিজটি বন্ধ থাকায় মুমুর্ষ রোগীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিতে প্রায় এক কিলোমিটার পথ ঘুরে আসতে হচ্ছে। ফলে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে খেয়ায় পারাপার হতে গিয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেছ মানুষ। আবার অনেকে ব্রিজে দেওয়া গ্রিলের বেড়া ডিঙিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ব্রিজ পার হচ্ছে। 

শহীদ স্মৃতি ডিগ্রী কলেজের ছাত্রী তানিয়া শেখ বলেন, বই খাতা নিয়ে নৌকায় করে পার হতে অত্যন্ত ঝুঁকি নিতে হয়। তাছাড়া খেয়াঘাটে প্রচণ্ড ভিড় থাকায় পার হতে সময় বেশি লেগে যাওয়ায় সঠিক সময়ে ক্লাসে উপস্থিত হওয়া যায় না। 

বন্দরের ব্যবসায়ী মুনিরুল ইসলাম জানান, ঝুঁকি নিয়ে বন্দরে আসতে অনিহা থাকায় বন্দরে ক্রেতা সমাগম কম হচ্ছে। 

ওই এলাকার সমাজ সেবক মো. মহিবুল্লাহ বলেন, ব্রিজটি বিধ্বস্ত হওয়ার এক মাস অতিবাহিত হলেও এখনও ব্রিজটি মেরামত না হওয়ায় নারী, শিশু ও বৃদ্ধরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাধ্য হয়ে খেয়ায় পার হচ্ছে। 

এ ব্যাপারে স্বরূপকাঠি পৌরসভার মেয়র মো. গোলাম কবির বলেন, স্বরূপকাঠি- কুড়িয়ানা-আটঘর সড়কের ঠিকাদারের মালামাল নামিয়ে বাল্কহেডটি ফেরার পথে ওই দুর্ঘটনা ঘটে। ওই কাজের ঠিকাদারের সাথে কথা হয়েছে তারা ব্রিজটি মেরামত করে দিবেন। কিন্তু ব্রিজের মাঝখানের দুটি পোষ্টের ভিম ভেঙে গেছে, যা মেরামত করলেও স্থায়িত্ব কম হবে। ফলে পুনরায় দুর্ঘটনার আশংকা আছে। সে কারণে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে তারা দু’-একদিনের মধ্যে অভিজ্ঞ প্রকৌশলী পাঠাবেন বলে জানিয়েছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা