kalerkantho

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল

প্রসূতির জননাঙ্গে সুঁই-সুতা রেখেই সেলাই!

রংপুর অফিস    

২৩ আগস্ট, ২০১৯ ১০:৩৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রসূতির জননাঙ্গে সুঁই-সুতা রেখেই সেলাই!

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে সন্তান প্রসব করানোর পর এক প্রসূতির জননাঙ্গের ভেতর সুঁই-সুতা রেখেই সেলাই করে দেওয়া হয়েছে। দুই দিন ধরে হাসপাতালে যন্ত্রণায় ছটফট করছেন ওই প্রসূতি। এ ঘটনায় দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছে তাঁর স্বজনরা।

ভুক্তভোগী প্রসূতির খালাশাশুড়ি রনজিনা আক্তার জানান, প্রায় দেড় বছর আগে রংপুর সদর উপজেলার পাগলাপীর এলাকার ইদ্রিস আলীর ছেলে তানজিদ হোসেনের

সন্তানসম্ভবা স্ত্রী আফরোজা বেগমকে গত মঙ্গলবার রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওই দিন রাত পৌনে ৮টার দিকে সন্তানের প্রসবের জন্য তাঁকে অস্ত্রোপচারকক্ষে নেওয়া হয়। স্বাভাবিক প্রসব হলেও অস্ত্রোপচার করতে হয় তাঁর জননাঙ্গে। এরপর রাত সাড়ে ১১টার দিকে তাঁকে ওয়ার্ডে স্থানান্তর করা হয়। অস্ত্রোপচারের পর অসহ্য ব্যথায় ছটফট করতে থাকেন আফরোজা। শুরু হয় রক্তক্ষরণ। একপর্যায়ে বিষয়টি চিকিৎসককে জানালে তাঁরা গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে এক্স-রে করার পরামর্শ দেন। তাঁদের পরামর্শে হাসপাতালের বাইরের একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে গিয়ে এক্স-রে করালে আফরোজার জননাঙ্গের ভেতর সুঁই-সুতার অস্তিত্ব পাওয়া যায়।

হাসপাতালে আফরোজার সঙ্গে থাকা তাঁর নানিশাশুড়ি রেজিয়া বেগম অভিযোগ করে বলেন, কোনো চিকিৎসক তাঁর অস্ত্রোপচার করেননি। নার্সরাই করেছেন।

ভুক্তভোগী আফরোজা বলেন, ব্যথায় ছটফট করলেও কর্তব্যরত নার্স ও চিকিৎসকরা তাঁর কথা শোনেননি। উল্টো অস্ত্রোপচার কক্ষে তাঁকে চড়-থাপ্পড় মারেন তাঁরা।

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের গাইনি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. শারমিন সুলতানা লাকী সাংবাদিকদের বলেন, ভুলক্রমে এটা হয়েছে। রোগীর সুচিকিৎসায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে জানতে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ডা. সুলতান আহমেদকে পাওয়া যায়নি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা