kalerkantho

২১ আগস্টে হামলার বিষয়ে মেয়র নাছির

মূল ইন্ধনদাতা তারেকের সর্বোচ্চ শাস্তি চাই

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২২ আগস্ট, ২০১৯ ০২:৫০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মূল ইন্ধনদাতা তারেকের সর্বোচ্চ শাস্তি চাই

মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। ফাইল ছবি

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু হত্যকাণ্ডের অসম্পূর্ণ নীলনকশা সম্পূর্ণ করতে ২১ আগস্ট শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে রক্তাক্ত গ্রেনেড হামলা চালানো হয়েছিল। এই বর্বরতার মূল ইন্ধনদাতা ছিলেন তত্কালীন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের প্রধানমন্ত্রীর ছেলে তারেক রহমান। তাঁর সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

গতকাল বুধবার চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ মিলনায়তনে মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে সমাবেশে মেয়র এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার রায়ে ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড হয়েছে। আমরা যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত মূল আসামি তারেক রহমানের সর্বোচ্চ শাস্তির রায় চাই। বিএনপি-জামায়াত জোটের আমলে রাষ্ট্রযন্ত্রের প্রত্যক্ষ ইন্ধনে পরিকল্পনা করেই এ হামলা হয়। অভিযুক্ত পলাতকদের ইন্টারপোল ও আন্তর্জাতিক গোয়েন্দা সংস্থার মাধ্যমে দেশে ফিরিয়ে এনে সর্বোচ্চ শাস্তি দিতে হবে।’

মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন সহসভাপতি এম জহিরুল আলম দোভাষ, সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, জোবাইরা নার্গিস খান, আবু তাহের প্রমুখ। সভার শুরুতে এক মিনিট নীরবতা পালন শেষে ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলায় নিহতদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে মিলাদ ও বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন মুসাফিরখানা শাহি জামে মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা কাজী জোবায়ের হোসাইন। 

সীতাকুণ্ডে বিক্ষোভ, তারেকের গ্রেপ্তার দাবি
সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি জানান, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে গতকাল সীতাকুণ্ড উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে বক্তারা বলেন, ওই হামলার মধ্য দিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করে দেশ থেকে বঙ্গবন্ধুর পরিবারকে নিশ্চিহ্ন করতে গভীর ষড়যন্ত্রের মাস্টারমাইন্ড ছিলেন তারেক রহমান। তাঁর প্রত্যক্ষ মদদে হামলার পর জজ মিয়া নাটক সাজিয়ে প্রকৃত আসামিদের বাঁচিয়ে দেওয়া হয়। হাওয়া ভবনের প্রভাব খাটিয়ে ঘটনা ধামাচাপাও দেন তারেক। তাই তারেকই প্রধান আসামি। তাঁকে দ্রুত গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।

আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কালামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল বাকের ভুঁইয়া। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাঈদ মিয়ার সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগ নেতা আজিজুল হক, মহিউদ্দিন আহমেদ মঞ্জু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিউদ্দিন আহমেদ, আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল বারেক সওদাগর, মেজবা উদ্দিন চৌধুরী, মো. ইউনুছ, পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, বাড়বকুণ্ড ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক মো. মহসীন জাহাঙ্গীর, সদস্যসচিব আয়ুব আলী, পৌর কাউন্সিলর মাইমুন উদ্দিন মামুন, আওয়ামী লীগ নেতা নজরুল ইসলাম, রতন মিত্র, গোলাম মহিউদ্দিন, সোনাইছড়ি আওয়ামী লীগ সভাপতি নুর মোহাম্মদ, মো. সালাউদ্দিন, খোরশেদ আলম, কিশোর ভৌমিক, গাজী সেকান্দর, উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক শায়েস্তা খান, মো. নাছির, ফেরদৌস কোরেশী, রবিউল হোসেন রবি, কামরুল হায়দার প্রমুখ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা