kalerkantho

বাসায় ডেকে এনে ১৩ বছরের শিশুকে জোরপূর্বক ধর্ষণ

হাওরাঞ্চল প্রতিনিধি   

১৯ আগস্ট, ২০১৯ ২০:৩৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাসায় ডেকে এনে ১৩ বছরের শিশুকে জোরপূর্বক ধর্ষণ

সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জে ১৩ বছর বয়সের প্রতিবেশী এক কন্যা শিশুকে বাসায় একটু কাজ করে দেয়ার কথা বলে ডেকে এনে তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেছে বলে আব্দুল হাসিম (৪৬) নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। 

ধর্ষিত ওই শিশুটি বর্তমানে জামালগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এদিকে ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্ত ধর্ষক আব্দুল হাসিম এলাকা ছেড়ে গা ডাকা দিয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

রবিবার রাত সাড়ে আটটার দিকে উপজেলার ফেনারবাগ ইউনিয়নের রামপুর গ্রামে ধর্ষনের এ ঘটনাটি ঘটে। আব্দুল হাসিম উপজেলার রামপুর গ্রামের মোগল হোসেনের ছেলে। 

খবর পেয়ে ওই রাতেই জামালগঞ্জ থানার ওসি মো. সাইকুল আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেনে।

পুলিশ ও স্থানীয় এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার রামপুর গ্রামের আব্দুল হাসিম নামে ওই লম্পটের স্ত্রী-সন্তান বাড়িতে না থাকায় রবিবার রাত সাড়ে আটটার দিকে সে তার প্রতিবেশী দিন মজুরের শিশু কন্যাটিকে তার বাসায় একটু কাজ করে দেওয়ার জন্য ডেকে আনেন। মেয়েটি ঘরের ভেতরে ঢোকা মাত্রই তিনি ঘরের দরজা বন্ধ করে দিয়ে মেয়েটিকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। এ সময় মেয়েটির ডাক-চিৎকার শুনে মা মরা ওই মেয়েটির বৃদ্ধা নানীসহ আশ-পাশের লোকজন এগিয়ে আসে। তারা ওই ঘরের বারান্দায় গিয়ে দরজায় কড়া নাড়তে থাকলে এসময় ধর্ষক আব্দুল হাসিম ঘরের পেছনের দরজা খুলে পালিয়ে যায়। পরে বাড়ির লোকজন মেয়েটিকে ওই ঘর থেকে উদ্ধার করে রাতেই জামালগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করে। পাশাপশি বিষয়টি পুলিশকে জানালে ওই রাতেই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এবং ধর্ষককে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করে।

এ বিষয়ে জামালগঞ্জ থানার ওসি মো. সাইকুল আলম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘটনার খবর পাওয়ার পর ওই রাতেই আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি এবং এ ঘটনার পর ধর্ষক এলাকা ছেড়ে গা ডাকা দেওয়ায় তাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মেয়েটির পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ দায়ের করেনি।

ওসি বলেন, অভিযোগ পেলে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা