kalerkantho

স্বপ্ন পুড়ল চার যুবকের

গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

১৮ আগস্ট, ২০১৯ ১৯:৪৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্বপ্ন পুড়ল চার যুবকের

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে মৎস্য খামারে বন্যার বিষাক্ত পানি ঢুকে চার যুবকের স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছে। স্বপ্নভঙ্গের বেদনা নিয়ে এখন তারা ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার মশাখালী ইউনিয়নের মাইট্টা বিল মৎস্য খামারে।

আজ রবিবার সরেজমিন খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার মশাখালী গ্রামের মৃত হালিম উদ্দিন ফকিরের বেকার ছেলে শাহজাহান, মৃত শামছুদ্দিন ফকিরের ছেলে শারফুল, মৃত আনার উদ্দিনের ছেলে ইকবাল হোসেন ও আব্দুল আওয়ালের ছেলে মানিক মিয়া মিলে প্রায় ৬ বছর পূর্বে মশাখালী-ভাতুরী মৌজার ২১ একর জমি নিয়ে মাইট্টা বিল লিজ নিয়ে মৎস্য খামার করেন। গত ৫ বছরে খরচাপাতিসহ বিনিয়োগকৃত টাকা তুলে যখন লাভের মুখ দেখবেন তখনই তাদের স্বপ্ন ভঙ্গ হয়। চলতি বন্যার সময় বিষাক্ত পানি মৎস্য খামারে ঢুকে মাছের মড়ক শুরু হয়। ৬ আগস্ট থেকে গত ১০/১২ দিনে অন্তত ১০ থেকে ১২ টন মাছ মরে ভেসে উঠেছে। এতে প্রায় ১২ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে। এ ঘটনায় উদ্যোক্তরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। তারা স্থানীয় মৎস্য অফিসসহ বিভিন্ন জায়গায় যোগযোগ করে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন। 

উদ্যোক্তা শাহজাহানের ছোট ভাই মাহমুদুল হাসান বলেন, প্রতিবছর বন্যার পানি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকে। কিন্তু এবারের বন্যার পানির রঙ ছিল নীলচে কালো। ধারণা করা হচ্ছে পার্শ্ববর্তী শ্রীপুর-ভালুকার শিল্পাঞ্চলের বিষাক্ত পানি ক্ষিরু নদী-সুতিয়া নদী হয়ে আমাদের শীলা নদীতে ঢুকেছে। সেই পানি আমাদের মৎস্য খামারেও ঢুকে মাছের মড়ক শুরু হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম আকন্দ বলেন, উদ্যোক্তাদের যে ক্ষতি হয়েছে তা পূরণ করা সম্ভব নয়। তবে তাদেরকে পরামর্শ দিয়েছি ওষধ দিয়ে পানি দূষণমুক্ত করে পুনরায় মাছের পোনা ছাড়তে। এ বিষয়ে তাদের সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা