kalerkantho

কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া রুটে যাত্রীদের গুনতে হচ্ছে বাড়তি ভাড়া

শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি   

১৮ আগস্ট, ২০১৯ ১৮:৪২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া রুটে যাত্রীদের গুনতে হচ্ছে বাড়তি ভাড়া

ঈদের ছুটি শেষে রবিবার প্রথম কর্মদিবসেও কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুট হয়ে ঢাকাসহ কর্মস্থলমুখো যাত্রীদের ভিড় ছিল। আকাশ মেঘলা থাকায় লঞ্চ ও স্পিডবোটের সাথে ফেরিতেও যাত্রীদের ভিড় ছিল বেশি। যাত্রীদের চাপ সামাল দিতে লঞ্চঘাট এলাকায় দফায় দফায় ব্যারিকেড দেয় প্রশাসন। তবে কাঁঠালবাড়ি ঘাটে যানবাহনের তেমন চাপ ছিল না। যানবাহনের অপেক্ষায় থাকতে দেখা গেছে ফেরিগুলোকে। দক্ষিণাঞ্চল থেকে ছেড়ে আসা প্রতিটি যানবাহন ও কাঁঠালবাড়ি ঘাটে নেমে স্পিডবোটে ও লঞ্চগুলোতে বাড়তি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ করেন যাত্রীরা। শিমুলিয়ায় নেমেও বাড়তি ভাড়া গুনতে হচ্ছে যাত্রীদের।

ঘাটের একাধিক সূত্রে জানা যায়, রবিবার বেলা বাড়ার সাথে সাথে শিমুলীয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুট হয়ে দক্ষিণাঞ্চলের যাত্রীদের ভিড় বাড়তে শুরু করে। কাঁঠালবাড়ি ঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া প্রতিটি ফেরি, লঞ্চ, স্পিডবোটেই যাত্রীদের ভিড় ছিল। লঞ্চে এতটাই ভিড় ছিল যে টার্মিনালে ঢোকার মুখে প্রথমে ব্যারিকেড দিয়ে যাত্রী নিয়ন্ত্রণ করে আনসার সদস্যরা। পরে পল্টুন থেকে লঞ্চে উঠার মুহুর্তে  বিআইডব্লিউটিএ, পুলিশ, র‌্যাব, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়ন্ত্রণের মুখে লঞ্চগুলোতে যাত্রী উত্তোলন করা হয়। তবে যাত্রী উত্তোলনের ক্ষেত্রে ধারনক্ষমতার পরিবর্তে লোডমার্ক মেনে উত্তোলন করতে দেখা যায়।

এদিকে যাত্রীদের কাছ থেকে দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ রুটের স্পিডবোট ও কিছু কিছু লঞ্চেও বাড়তি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। নদী পাড়ি দিয়ে শিমুলিয়া ঘাট থেকে বাড়তি ভাড়া গুনে গন্তব্যে পৌঁছাতে হয় যাত্রীদের।

ফেরি যাত্রী রহমান মিয়া বলেন, পদ্মা পাড়ি দিতে লঞ্চ ঘাটে গিয়েছিলাম। কিন্তু হঠাৎ আবহাওয়া খারাপ হয়ে বৃষ্টি শুরু হয়ে গেল তাই লঞ্চে পার না হয়ে ফেরিতে উঠলাম।

স্পিডবোট যাত্রী হালিম মিয়া বলেন, খুলনা থেকে বাসে ২০০ টাকার ভাড়া ৫০০ টাকা দিয়ে ঘাটে এসেছি। এখানেও স্পিডবোটে ১৩০ টাকার ভাড়া ১৮০ টাকা নিলো।

বিআইডব্লিউটিএ কাঁঠালবাড়ি ঘাট ট্রাফিক ইন্সপেক্টর আক্তার হোসেন বলেন, আজও কর্মস্থলমুখো যাত্রীদের অনেক চাপ রয়েছে। পুলিশ, র‌্যাব, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ আমরা ঘাটে অবস্থান নিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করছি।

কর্তব্যরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সালমা পারভীন বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঘাটে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা