kalerkantho

সোমবার । ২৬ আগস্ট ২০১৯। ১১ ভাদ্র ১৪২৬। ২৪ জিলহজ ১৪৪০

উপচে পড়া ভিড় বেনাপোলে

৪৫ টাকা টার্মিনাল চার্জ দিয়েও রোদে পুড়ছে বৃষ্টিতে ভিজছে মানুষ

বেনাপোল প্রতিনিধি   

১৪ আগস্ট, ২০১৯ ১৭:২১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



৪৫ টাকা টার্মিনাল চার্জ দিয়েও রোদে পুড়ছে বৃষ্টিতে ভিজছে মানুষ

ঈদুল আজহা, জাতীয় শোক দিবস ও সাপ্তাহিক ছুটিতে পাসপোর্টযাত্রীদের ভারতে যাওয়ার ধুম পড়েছে। ভিসা সহজলভ্যতা ও কম খরচের কারণে পরিবার-পরিজন নিয়ে ঈদ কাটাতে, ঘুরতে ও চিকিৎসার জন্য অনেকে ভারত যাচ্ছেন। জরুরি প্রয়োজন থাকলেও এতদিন ছুটি না মেলায় তারা যেতে পারেনি। এখন ঈদ, শোক দিবস ও সাপ্তাহিক ছুটিসহ লম্বা সময় পাওয়ায় পরিবার-পরিজন নিয়ে ভারতের উদ্দেশে রওনা হয়েছেন। গত বৃহস্পতিবার (৮ আগস্ট) থেকে ভারতে যাওয়া যাত্রীদের উপচে ভরা ভিড় এখনো দেখা যাচ্ছে। নিরাপত্তা ও বিশৃঙ্খলা এড়াতে দায়িত্বে রয়েছে পুলিশসহ কয়েকটি নিরাপত্তা বাহিনী। ভোর ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত বেনাপোল ইমিগ্রেশন থেকে সারাদিন লাইন ছিল যাত্রীদের প্রায় ২ কিলোমিটার।

ভারতগামী যাত্রী সুশান্ত সেন জানান, তিনি একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। পরিবারের কয়েকজনকে ডাক্তার দেখানো দরকার। কিন্তু এতদিন ছুটি না পাওয়ায় যেতে পারেননি। এখন লম্বা ছুটি পেয়ে সীমান্ত পার হচ্ছেন। ওখানে আত্মীয়-স্বজন আছেন তাদের সাথেও দেখা হবে।

ভারতে যাওয়া পাসপোর্টযাত্রী অরুণা কর্মকার বলেন, আমার স্বামী একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। বেশ কিছুদিন থেকে ভারতে যেতে চাই। ঈদে কয়েকদিনের ছুটি পাওয়ায় এখন ভারতে বেড়াতে যাচ্ছি।

ভারত গমনকারী পাসপোর্টযাত্রী নজরুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘ তিন ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। এর আগে কোনোদিন এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়নি। ঈদের ছুটিতে কয়েক হাজার মানুষ প্রতিদিন ভারত যাচ্ছে। তবে রোগীদের জন্য আলাদা একটি লাইন করলে ভালো হতো।

এদিকে বেনাপোল স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ ভারতগামী পাসপোর্টযাত্রীদের নিকট থেকে ৪৫ টাকা টার্মিনাল চার্জ নিলেও তাদের দিতে পারছে না বসার স্থান। মাত্র ৫০ জনের সিট রয়েছে টার্মিনালের ভেতরে। অথচ এ পথে প্রতিদিন চার থেকে ছয় হাজার যাত্রী ভারতে প্রবেশ করে। যাত্রীরা টার্মিনাল চার্জ দিয়ে বাইরে রোদ-বৃষ্টিতে ভিজছে। সব মিলিয়ে বেনাপোল চেকপোস্টে অপরিকল্পিত ব্যবস্থাপনায় পাসপোর্টযাত্রীরা ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।

বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনের পরিদর্শক (তদন্ত) মাসুম বিল্লাহ বলেন, যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হওয়াতে এ পথে বিভিন্ন প্রয়োজনে প্রতিদিন সাধারণত ৩ থেকে ৪ হাজার পাসপোর্টযাত্রী ভারতে যায়। এখন ঈদ ছুটিতে তা বেড়েছে। ঈদের আগের দিন ১১ আগস্ট থেকে ১৩ আগস্ট পর্যন্ত বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতে গেছেন ১৮ হাজার ১৮৬ জন যাত্রী। এদের মধ্যে বাংলাদেশি যাত্রী রয়েছে ১৬ হাজার ৯১০ জন, ভারতীয় এক হাজার ২৬৩ জন ও অনান্য দেশের ১৩ জন। যাত্রীদের সেবায় ইমিগ্রেশনের লোকজন একটানা কাজ করে যাচ্ছে।

বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তা মৃণাল কান্তি সরকার বলেন, ঈদ ছুটির মধ্যে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ থাকলেও কাস্টমস ইমিগ্রেশনের সব শাখা খোলা আছে। অন্যান্য সময়ের চাইতে এখন যাত্রীদের যাতায়াত বেশি। তারা যাতে স্বাচ্ছন্দ্যে যাতায়াত করতে পারেন তার জন্য প্রয়োজনীয় জনবলও রয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা