kalerkantho

বুধবার । ২১ আগস্ট ২০১৯। ৬ ভাদ্র ১৪২৬। ১৯ জিলহজ ১৪৪০

মাটিতে পুঁতে ফেলা হলো ৮০০ চামড়া (ভিডিওসহ)

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ আগস্ট, ২০১৯ ১১:৫৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'এক নজরে সৈয়দপুর' নামে একটি ফেসবুক পেজে চামড়া মাটিতে পুঁতে ফেলার ভিডিওটি শেয়ার করা হয়।

সেখানে বলা হয়েছে, 'রিজিকের মালিক আল্লাহ। যারা চামড়া সিন্ডিকেট করে, তাদের কাছে মাথানত না করে সব চামড়া মাটিতে পুতে ফেলুন। আজ ৫০/৬০ টাকা দরে চামড়া বিক্রি করলে তা একটা প্রথা হয়ে দাঁড়াবে, তখন প্রতি বছরই এত কম দামে চামড়া বিক্রি করতে হবে। দু-তিন বছর ওদের কাছে চামড়া বিক্রি না করলে ওরা চামড়া সংকটে পড়বে, তখন এমনিতেই চামড়ার দাম বাড়বে। জামেয়া সৈয়দপুরের কুরবানির প্রায় ৮০০ চামড়া মাটিতে দাফন করার কাজ চলছে।'

বাংলাদেশে সারা বছর যে সংখ্যক পশু জবাই হয়, তার অর্ধেক হয় কোরবানির মৌসুমে। যারা কোরবানি দেন, তাদের কাছ থেকে কাঁচা চামড়া কিনে মৌসুমী ব্যবসায়ীরা বিক্রি করেন ট্যানারিতে। এ সময়ই সবচেয়ে বেশি চামড়া সংগ্রহ করেন ট্যানারি মালিকরা। 

এবার চামড়ার দাম পড়ে যাওয়ার জন্য 'সিন্ডিকেটের কারসাজির' অভিযোগ করেছেন মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীরা।

উত্তরবঙ্গের অন্যতম বৃহত্তম চামড়ার বাজার দিনাজপুরের রামনগরে ক্রেতা মিলছে না। সংরক্ষণের ব্যবস্থা না থাকায় মৌসুমী ব্যবসায়ীরা চামড়া বাজারে ফেলেই চলে যাচ্ছেন।

মঙ্গলবার ওই বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, মৌসুমী ব্যবসায়ীরা ঈদের দিন কেনা চামড়া নিয়ে বসে আছেন। কিন্তু কোনো ক্রেতা নেই।

দিনাজপুর চামড়া ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল খায়ের বলেন, 'ঢাকার ট্যানারিতে প্রচুর চামড়া অবিক্রিত আছে৷ তাই এখন আর চামড়া কিনে বিক্রির নিশ্চয়তা নেই।'

আর সমিতির সাবেক সভাপতি আকতার আজিজ বলেন, 'ছাগলের চামড়া কেউ কিনছে না। কারণ, লবণজাত করতে যে খরচ, বিক্রি করে তা-ও উঠবে না।'
সূত্র: ডয়চে ভ্যালে

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা