kalerkantho

বুধবার । ২১ আগস্ট ২০১৯। ৬ ভাদ্র ১৪২৬। ১৯ জিলহজ ১৪৪০

জলঢাকার মতি মাস্টারকে শহীদ ও মুক্তিযোদ্ধা স্বীকৃতির দাবিতে সংগঠন

জলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধি   

১৪ আগস্ট, ২০১৯ ০৮:১১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জলঢাকার মতি মাস্টারকে শহীদ ও মুক্তিযোদ্ধা স্বীকৃতির দাবিতে সংগঠন

ছবি প্রতীকী

নীলফামারীর জলঢাকায় ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে হানাদার বাহিনীর হাতে নির্মম নির্যাতনের পর মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়া মতিয়ার রহমান (মতি মাস্টার)কে শহীদ ও মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতির দাবিতে মতি মাষ্টার স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদ নামে একটি সংগঠন আত্মপ্রকাশ করেছে।

সংগঠনটির উদ্যোগে মঙ্গলবার রাত নয়টায় স্থানীয় শহীদ মিনারের পাদদেশে সাংবাদিক হাসিবুল ইসলাম মিতুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন লেখক হুমায়ুন কবির হিমু।

বক্তব্য রাখেন যুবলীগ কেন্দ্রিয় কমিটি সদস্য সাদ্দাম হোসেন পাভেল, উপজেলা যুবলীগ আহবায়ক সারোয়ার হোসেন সাদের, হিন্দু-বৌদ্ধ,খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদ সভাপতি লিটন কর্মকার, সাংবাদিক আসাদুজ্জামান স্টালিন, ভাইস-প্রিন্সিপাল রেজাউল আকতার রুবেল,জাসদ নেতা মজিবর রহমান প্রমুখ।

সভায় বক্তারা বলেন, ‘জলঢাকায় মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে দেশীয় রাজাকার-আলবদর, পিচ কমিটি সদস্যদের মাধ্যমে বাড়ী হতে হানাদার বাহিনীর সদস্যরা ধরে নিয়ে আসে মতি মাষ্টারকে। মতিয়ার রহমান মতি জলঢাকা ডাকঘরে চাকুরী করতেন। তাই সবাই তাকে পোষ্ট মাস্টার হিসেবে চিনতেন। তিনি আওয়ামীলীগের একজন ত্যাগী কর্মী ছিলেন এবং দেশপ্রেমী। বিবিসি,ভয়েস অব আমেরিকা ও স্বাধীন বাংলা বেতারের খবর সব সময় শুনতেন তিনি। এসব খবর পরে হাট-বাজারের চায়ের দোকান ও জনাকীর্ণ এলাকায় বলতেন। এছাড়াও হানাদার বাহিনীর অবস্থান মুক্তিযোদ্ধাদের নিকট পৌঁছাতেন। এসব অপরাধে পাক সেনার দোসরদের রোষানলে পড়েন মতি মাস্টার। যার খেসারত প্রায় এক সপ্তাহ জলঢাকা হাই স্কুলের তেতুল গাছে উল্টো করে ঝুলিয়ে তিলে তিলে নির্যাতনের পর ১৯৭১ সালে ৭ জুন নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়।

পরবর্তীতে তাঁর পরিবারের সদস্যরা অনেক ছুটলেও আজও স্বীকৃতি মেলাতে পারেননি শহীদ ও মুক্তিযোদ্ধার। আছে শুধু স্বাধীনতা পরবর্তী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাষ্ট্রীয় অনুদানের দেওয়া দুই হাজার টাকার ফটোকপি একখানা কাগজ। তাই আজ সবার প্রাণের দাবি উঠেছে মতি মাষ্টারকে শহীদ ও মুক্তিযোদ্ধা স্বীকৃতি দেওয়া হোক।’

সভা শেষে সর্ব সম্মতিক্রমে সাংবাদিক আসাদুজ্জামান স্টালিনকে আহবায়ক ও সাংবাদিক হাসিবুল ইসলাম মিতুকে সদস্য সচিব করে ১৫১ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করা হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা