kalerkantho

শুক্রবার । ৪ আষাঢ় ১৪২৮। ১৮ জুন ২০২১। ৬ জিলকদ ১৪৪২

শেরপুরে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়ছেই

শহরের ১৩টি পয়েন্টে বিশেষ পরিচ্ছন্নতা অভিযান

শেরপুর প্রতিনিধি   

৭ আগস্ট, ২০১৯ ১৪:৫৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শেরপুরে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়ছেই

শেরপুর জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব বুধবার দুপুরে জেলা হাসপাতালের দোতলায় ডেঙ্গু কর্ণার পরিদর্শন করেন

শেরপুরে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এ অবস্থায় ডেঙ্গুর প্রকোপ কমাতে শেরপুরে একযোগে মশা নিধনের লক্ষে ৭ আগস্ট বুধবার সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত শহরের গুরুত্বপূর্ণ ১৩টি পয়েন্টে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার লক্ষ্যে ক্র্যাশ প্রোগ্রাম করা হয়। বুধবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত ২৪ ঘন্টায় শেরপুরে শিশুসহ আরো ছয়জন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে।

জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব কালেক্টরেরট চত্বরে ক্র্যাশ প্রোগ্রামের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। অভিযানে কালেক্টরেট চত্বর, হাসপাতাল, বাসস্ট্যান্ড, হাট-বাজার সহ জনবহুল স্থানগুলোতে বিশেষ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযানে কালেক্টরেট চত্বর ও ডিসি উদ্যান পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও ময়লা-আবর্জনামুক্ত করা হয়। এ সময় সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা, স্কুল-কলেজের শিক্ষাথী-শিক্ষক, জেলা ছাত্রলীগ, স্কাউট এবং সুশিল সমাজের প্রতিনিধিরা ক্র্যাশ প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করেন।

এদিকে, জেলা হাসপাতালে বুধবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত ২৪ ঘন্টায় শিশুসহ আরও ৬ ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে গত তিন সপ্তাহে জেলা হাসপাতালে ৪২ জন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন ডায়াগোনোস্টিক সেন্টারে রক্ত পরীক্ষায় আরও ২৪ রোগী শনাক্ত হয়েছে।

জেলা হাসপাতালে বর্তমানে ৩ মহিলা ২ শিশু সহ ২০ জন ডেঙ্গু রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, ডেঙ্গু সনাক্ত হওয়া রোগীরা সবাই ঢাকা থেকে জ¦রে আক্রান্ত হয়ে শেরপুর আসার পর রক্তের পরীক্ষায় ডেঙ্গু ধরা পড়েছে। স্থানীয়ভাবে কারো ডেঙ্গু সনাক্ত হওয়ার তথ্য নেই বলে জানিয়েছেন জেলা হাসপাতালের আরএমও ডা. খাইরুল কবীর সুমন।

বুধবার দুপুরে জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব জেলা হাসপাতালের দোতলায় ডেঙ্গু কর্ণার পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি চিকিৎসাধীন রোগীদের খোঁজখবর নেন এবং চিকিৎসকদের প্রতি আক্রান্তদের যথাযথ চিকিৎসা নিশ্চিত করার আহ্বান জানান। ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডা. সেলিম মিয়া, ভারপ্রাপ্ত হাসপাতাল তত্ত্বাবধায়ক ডা. নাদিম হাসান, আরওএমও ডা. খায়রুল কবীর সুমন, জেলা বিএমএ সভাপতি ডা. আব্দুল বারেক তোতা ও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা তাঁর সাথে ছিলেন।

জেলা হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক ডা. নাদিম হাসান জানান, ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে জেলা হাসপাতালে ১০ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এতে ডেঙ্গু রোগীদের আরও ভালো ব্যবস্থাপনায় চিকিৎসা দেওয়া যাবে।



সাতদিনের সেরা