kalerkantho

মঙ্গলবার। ২০ আগস্ট ২০১৯। ৫ ভাদ্র ১৪২৬। ১৮ জিলহজ ১৪৪০

বরগুনায় জঙ্গলে নিয়ে স্কুলছাত্রীকে প্রেমিকের ধর্ষণ, টের পেয়ে বখাটেদেরও গণধর্ষণ

বামনা (বরগুনা) প্রতিনিধি   

২৩ জুলাই, ২০১৯ ২২:১৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বরগুনায় জঙ্গলে নিয়ে স্কুলছাত্রীকে প্রেমিকের ধর্ষণ, টের পেয়ে বখাটেদেরও গণধর্ষণ

বরগুনার বামনার একটি স্থানীয় স্কুলের অষ্টম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে গণধর্ষনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে প্রণব চন্দ্র বিশ্বাস (২২) এবং সোহেল হাওলাদার (২১) নামে দুই যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। প্রণব বিশ্বাস উপজেলার উত্তর গুদিঘাটা গ্রামের কুমেদ বিশ্বাসের ছেলে ও সোহেল হাওলাদার একই গ্রামের মো. সেলিম হাওলাদারের ছেলে। 

আজ মঙ্গলবার দুপুরে উত্তর কাকচিড়া বাজার থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে বামনা থানা পুলিশ। এ ঘটনায় বামনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শিউলী হরি ও বামনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম মাসুদুজ্জামান তাৎক্ষণিকভাবে বিদ্যালয়টি পরিদর্শন করে ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বলেন। এ ব্যাপারে বামনা থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। 

বামনা থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বরগুনার বামনার স্থানীয় বিদ্যালয়ে পড়ুয়া অষ্টম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী বিদ্যালয় থেকে বাড়ি যাওয়ার পথে দুপুর ১টার দিকে প্রণব বিশ্বাসসহ সোহেল হাওলাদার, অসীম ও অন্তর নামে চারজন সহযোগী জোর করে তাকে নদীর পাড়ে নিয়ে যায় গত সোমবার। সেখানে ওই শিক্ষার্থীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে তারা। এ ঘটনাটি কাউকে জানালে ওই শিক্ষার্থীকে প্রাণনাশের হুমকিও দেয়। পরে তাকে অচেতন অবস্থায় ফেলে রেখে চলে যায় তারা। 

ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থী প্রাণের ভয়ে বিষয়টি পরিবারের কাউকে জানানোর সাহস পায়নি। ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত থাকা অন্তরের বাবা ওই বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মো. স্বপন হাজী বিষয়টি টের পান এবং এক ব্যক্তিকে জানান। এক পর্যায়ে সংবাদকর্মীরাও জেনে যায়। 

পরে স্থানীয় সংবাদকর্মীরা আজ মঙ্গলবার দুপুরে প্রণব নামের একজনকে জিজ্ঞাসা করলে সে ওই ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়টি স্বীকার করে। প্রণব জানায়, সোহেলের সঙ্গে ওই মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক ছিলো। ওরা নদীর তীরে জঙ্গলের মধ্যে গেলে তারা কয়েকজন তার পেছনে পেছনে যায়। প্রথমে সোহেল ধর্ষণ করে। পরে তারা এই ধর্ষণকাণ্ডে অংশ নেয়।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পান্না মিয়া বলেন, আমি বিষয়টি আজই প্রথম শুনেছি। এ ধরনের ঘটনা ঘটে থাকলে আমি তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। 

এ ব্যাপারে বামনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম মাসুদুজ্জামান বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকায় প্রণব ও সোহেল নামে দু’জনকে গ্রেপ্তার করে বামনা থানা পুলিশ। ওই শিক্ষার্থীর জবানবন্দি ও পরিবারের পক্ষে মামলা নিয়ে বাকি আসামিদের গ্রেপ্তার করা হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা