kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২২ আগস্ট ২০১৯। ৭ ভাদ্র ১৪২৬। ২০ জিলহজ ১৪৪০

কচুয়া হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কাঠমিস্ত্রির লাশ!

চিতলমারী-কচুয়া (বাগেরহাট) প্রতিনিধি   

২২ জুলাই, ২০১৯ ১১:৪৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কচুয়া হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কাঠমিস্ত্রির লাশ!

বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগ থেকে ছালাম খান (৪২) নামের এক কাঠমিস্ত্রির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ বিষয়ে রবিবার রাতে কচুয়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন নিহতের ছেলে লালন খান। বিষয়টি কচুয়া এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। ছালাম খান কচুয়ার টেংরাখালী গ্রামের বেলায়েত খানের পুত্র। 

কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার (আরএমও) ডা. বেলফার হোসেন বলেন, রবিবার দুপুর ২টার দিকে এক ভ্যানচালক হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ওই ব্যাক্তিকে ফেলে রেখে চলে যায়। চিকিৎসা করতে গিয়ে দেখি লোকটি মৃত অবস্থায় আছে। বিষয়টি থানায় জানালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে নিয়ে যায়। 

কচুয়া থানার পরিদর্শক শেখ শফিকুর রহমান জানান, ময়নাতদন্তের জন্য লাশ বাগেরহাট মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে বিস্তারিত জানা যাবে। এই ঘটনায় ছালাম খানের ছেলে লালন খান বাদী হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করেছে। মামলায় গোপালপুর গ্রামের সম্ভু মন্ডলের ছেলে কাঠমিস্ত্রি সন্তোষ কুমার মন্ডল ওরফে কালু মিস্ত্রি এবং কাঠমিস্ত্রি পরেশ কুমারকে আসামি করা হয়েছে। তাদের সাথে ছালাম খানের পূর্ববিরোধের জের ধরে রবিবার সকালে কচুয়া বাজারে বসে ঝগড়া হয়েছিল বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়। আসামিদের আটকের জন্য জোর প্রচেষ্টা চলছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা