kalerkantho

শনিবার । ২৪ আগস্ট ২০১৯। ৯ ভাদ্র ১৪২৬। ২২ জিলহজ ১৪৪০

ঝালকাঠিতেও প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহি মামলার আবেদন খারিজ

ঝালকাঠি প্রতিনিধি   

২১ জুলাই, ২০১৯ ১৭:৩১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঝালকাঠিতেও প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহি মামলার আবেদন খারিজ

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশ সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন করায় প্রিয়া সাহার নামে ঝালকাঠিতে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে মামলার আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন আদালত। 

আজ রবিবার দুপুরে ঝালকাঠির জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতে মামলাটির আবেদন করেন যুবলীগ নেতা ছবির হোসেন। বিচারক এ এইচ এম ইমরানুর রহমান বাদি ও আইনজীবীর বক্তব্য শোনেন। তবে এ বিষয়ে তিনি বিকেল চারটা পর্যন্ত কোন আদেশ প্রদান করেননি। পরে বাদির আবেদনটি খারিজ করে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাদির আইনজীবীরা। 

মামলার আবেদনে জানা যায়, বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহা বাংলাদেশের একজন নাগরিক হয়ে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি ঘৃণা ও বিদ্বেষ প্রকাশ করে মিথ্যা বক্তব্য তুলে ধরেছেন। তিনি বলেছেন বাংলাদেশে তিন কোটি ৭০ লাখ সংখ্যালঘু হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান ‘নাই’ হয়ে গেছে। দয়া করে বাংলাদেশের জনগণকে সাহায্য করুন, আমরা আমাদের দেশে থাকতে চাই। তিনি বাংলাদেশ সরকারকে উগ্রবাদী, মৌলবাদী মুসলমানদের দ্বারা কৃত অপরাধের রক্ষাকারী এবং বিচারহীনতার যে অভিযোগ ট্রাম্পের কাছে করেছেন, তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। এ ধরনের বক্তব্য রাষ্ট্রদ্রোহীতার সামিল। বাংলাদেশ উগ্রমৌলবাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপের কারনে বিশ্বে প্রশংসিত হয়েছে। তাই প্রিয়া সাহার বক্তব্য বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ও বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক নষ্ট করার ষড়যন্ত্র বলেও দাবি করা হয় মামলার আবেদনে। 

মামলার বাদি ছবির হোসেন ঝালকাঠি শহর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক এবং শেখ রাসেল শিশু কিশোর পরিষদের জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক। তিনি শহরের মধ্যচাঁদকাঠি এলাকার আবদুল কাদেরের ছেলে। 

বাদির আইনজীবী রুহুল আমীন রিজভী বলেন, দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্যই প্রিয়া সাহা আমেরিকার প্রেসিডেন্টের কাছে নালিশ করেছে। এতে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহি মামলা হওয়া প্রয়োজন। কিন্তু আদালত আমাদের আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা