kalerkantho

সোমবার। ১৯ আগস্ট ২০১৯। ৪ ভাদ্র ১৪২৬। ১৭ জিলহজ ১৪৪০

পটিয়ায় অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ

পটিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

২১ জুলাই, ২০১৯ ০২:০৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পটিয়ায় অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ

চট্টগ্রামের পটিয়া থানার মহিরা স্কুলের অষ্টম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। গত ১৯ জুলাই শুক্রবার দিবাগত রাত সাডে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় ছাত্রীর বাবা মো. জসিম উদ্দিন বাদী হয়ে একই এলাকার মো. তৈয়বের ছেলে মো. আরমান, মো. ইমরানের বিরুদ্ধে পটিয়া থানায় মামলা দায়ের করেছে।

পুলিশ ও ধর্ষিতার পরিবার সূত্রে জানা যায়, ধর্ষিতার বাবা জসিম উদ্দিন ও তার স্ত্রী রুবি আকতার শুক্রবার রাতে এক আত্মীয়ের বাড়িতে গায়ে হলুদ অনুষ্ঠান শেষে বাড়িতে এসে নিজ রুমে ঘুমিয়ে পড়েন। এ সময় তাদের  দুই মেয়ে ও পাশের রুমে ঘুমিয়ে ছিল। কিন্তু রাত ২টার সময় জসিমের স্ত্রী রুবি প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে উঠলে দেখেন তাদের বড় মেয়ে ঘরে নিজ রুমে নেই।

বিষয়টি রুবি তার স্বামী জসিমকে জানালে তারা দুইজনেই বড মেয়েকে খোঁজাখুঁজি করতে থাকেন। এর এক পর্য়ায়ে তারা তাদের মেয়ে নুরুল আমিন নামে এক ব্যক্তির বসত ঘরের সামনে  রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছেন। ওই স্কুল ছাত্রীকে তার বাবাসহ এলাকার লোকজন সেখান থেকে উদ্ধার করে প্রথমে পটিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে তার অবস্থা আশংকাজনক হলে ডাক্তাররা তাকে  চমেক হাসপাতালে রেফার্ড করেন। 

বর্তমানে ওই স্কুল ছাত্রী চমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে তার বাবা জানান। মেয়েটির বাবা জসিম উদ্দিন আরো জানান, তার মেয়ে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘর থেকে বের হলে ধর্ষকরা জোরপূর্বক মুখ চেপে ধরে উঠিয়ে নিয়ে তার মেয়েকে ধর্ষণ করেছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পটিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. বোরহান উদ্দিন জানান  ধর্ষণের দায়ে দুইজনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা রুজু হয়েছে। পুলিশ আসামি গ্রেপ্তারে অভিযান চালাচ্ছে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা