kalerkantho

মঙ্গলবার  । ২০ শ্রাবণ ১৪২৭। ৪ আগস্ট  ২০২০। ১৩ জিলহজ ১৪৪১

'হৃদয়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ না থাকলে আওয়ামী লীগ করার প্রয়োজন নেই'

নীলফামারী প্রতিনিধি   

২০ জুলাই, ২০১৯ ২১:১৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



'হৃদয়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ না থাকলে আওয়ামী লীগ করার প্রয়োজন নেই'

আসাদুজ্জামান নূর বলেছেন, যারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারণ করেন না, দেশ ও মানুষের সেবার জন্য রাজনীতি করেন না, যারা মানুষকে জিম্মি করে নিজের আখের গোছাতে চান, তাদের আওয়ামী লীগ করার প্রয়োজন নেই।

আজ শনিবার নীলফামারী জেলা যুব মহিলা লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে দেওয়া বক্তব্যকালে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশ ও মানুষের জন্য জীবন উৎসর্গ করেছেন। তিনি কখনো নিজের ও পরিবারের জন্য রাজনীতি করেননি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করে আজ তাঁর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন দেশ ও মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য। জীবনের সবকিছু হারিয়ে হৃদয়ে অনেক কষ্ট-যন্ত্রণা নিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার কাজ করছেন তিনি।

বিএনপি-জামায়াত জোটের উন্নয়ন সহ্য হয় না উল্লেখ করে সম্মেলনের উদ্বোধক অপু উকিল বলেন, বিশ্ব ব্যাংকের টাকায় পদ্মা সেতু হওয়ার কথা। সেই টাকা বন্ধ করে দিয়েছিলেন বেগম খালেদা জিয়া। তার পরেও জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশীয় অর্থে পদ্মা সেতুর কাজ প্রায় শেষ করেছেন। পদ্মা সেতুর সব পিলার বসে গেছে। এখন তারা গুজব ছড়াচ্ছেন পদ্মা সেতুতে মানুষের মাথা লাগবে। কারণ বাংলাদেশের বৃহৎ একটি প্রকল্প আওয়ামী লীগের সরকার নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়ন করছে। এটি বিএনপি-জামায়াত জোট মেনে নিতে পারছে না।

এদিন সকাল ১১টার দিকে সম্মেলনস্থলে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের পর বেলুন ও শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করা হয়। এরপর জেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি আরিফা সুলতানা লাভলীর সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা দেন সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য রাবেয়া আলীম, বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য খোদেজা নাসরিন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক মমতাজুল হক, জেলা কৃষক লীগের সভাপতি অক্ষয় কুমার রায়, বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগের সহশিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক সরকার ফারহানা আক্তার সুমি, সদস্য বিথী ইয়াসমিন, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুজার রহমান, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মসফিকুল ইসলাম রিন্টু প্রমুখ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক শান্তনা চক্রবর্তী।

প্রথম অধিবেশন শেষে দ্বিতীয় অধিবেশনে শান্তনা চক্রবর্তীকে সভাপতি ও ইসরাত জাহান পল্লবীকে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা যুব মহিলা লীগের ৮১ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করে সম্মেলনের উদ্বোধক বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক অপু উকিল।

জেলা যুব মহিলা লীগের নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ইরাত জাহান পল্লবী জানান, ২০০৭ সালে জেলা যুব মহিলা লীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠিত হয়। এরপর ২০১৩ সালে আরিফা সুলতানা লাভলীকে সভাপতি ও শান্তনা চক্রবর্তীকে সাধারণ সম্পাদক করে ৮১ সদস্যের পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটি গঠনের প্রায় ছয় বছর পর কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হলো।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা