kalerkantho

শনিবার । ২৪ আগস্ট ২০১৯। ৯ ভাদ্র ১৪২৬। ২২ জিলহজ ১৪৪০

পানি বাড়ছে ব্রহ্মপুত্র নদের, পানিবন্দি ৫০ হাজার মানুষ

শ্রীবরদী (শেরপুর) প্রতিনিধি   

১৯ জুলাই, ২০১৯ ১৮:৪৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পানি বাড়ছে ব্রহ্মপুত্র নদের, পানিবন্দি ৫০ হাজার মানুষ

ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি পেয়ে নতুন করে শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলার দুটি ইউনিয়নের ১৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। শুক্রবার বিকাল পর্যন্ত পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। এতে নতুন করে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন প্রায় ২০ হাজার মানুষ।

জানা যায়, গত এক সপ্তাহ আগে প্রবল বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে শ্রীবরদী উপজেলার কাকিলাকুড়া, তাতিহাটি, গোসাইপুর ও গড়জরিপা ইউনিয়নের প্রায় ১০টি গ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন প্রায় ৩০ হাজার মানুষ। গত বৃহস্পতিবার থেকে এসব এলাকার পানি কমতে শুরু করলেও গত মঙ্গলবার থেকে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি পেয়ে উপজেলার ভেলুয়া ও খড়িয়াকাজীরচর ইউনিয়নের ১৫টি গ্রামের প্রায় ২০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। এসব এলাকার কাঁচা ঘর-বাড়ি, রাস্তাঘাট, রোপা আমন ধানের বীজতলা, সবজি ক্ষেত, মৎস্য খামার ও পুকুরের মাছ পানিতে ভেসে গেছে। এতে ব্যাপক ক্ষতির আশংকা করছেন ভুক্তভোগীরা।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ নাজমুল হাছান কালের কণ্ঠকে জানান, সৃষ্ট বন্যায় উপজেলার কমপক্ষে পাঁচ হেক্টর জমির আমন ধানের বীজতলা ও সাতশ হেক্টর জমির সবজি ক্ষেত পানিতে তলিয়ে গেছে। 

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা কৃষিবিদ সাইদুর রহমান জানান, বন্যায় পাঁচ শতাধিক মৎস্য খামার ও পুকুর পানিতে ডুবে মাছ বের হয়ে গেছে। এতে প্রায় দুই কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সেঁজুতি ধর জানান, বন্যা পরিস্থিতি অনেকটাই উন্নতির দিকে। তবে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি পেয়ে ভেলুয়া ও খড়িয়াকাজীরচর ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা