kalerkantho

শনিবার । ২৪ আগস্ট ২০১৯। ৯ ভাদ্র ১৪২৬। ২২ জিলহজ ১৪৪০

বিয়ানীবাজার পৌরশহরে মাছ বিক্রি শুরু, স্বস্তিতে ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ

বিয়ানীবাজার (সিলেট) প্রতিনিধি   

১৮ জুলাই, ২০১৯ ১৬:৪২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিয়ানীবাজার পৌরশহরে মাছ বিক্রি শুরু, স্বস্তিতে ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ

ছবি: কালের কণ্ঠ।

সিলেটের বিয়ানীবাজার পৌরশহরে প্রায় এক বছর পর আবারো শুরু হয়েছে মাছ বিক্রি। সব নাটকীয়তা ও দীর্ঘ প্রতিক্ষার অবসান হয় মাছ ব্যবসায়ীদের সাথে জনপ্রতিনিধিদের কয়েক দফা বৈঠকে শেষে গতকাল বৃহস্পতিবার। এরপরই অস্থায়ীভাবে সেড নির্মাণ করে মাছ বিক্রি শুরু হয়। 

এক বছর পর পৌরশহরে মাছ বিক্রি শুরু হওয়ার পর স্বস্তি ফিরে এসেছে শহরের ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষের মধ্যে। আনন্দে পৌরশহরে মিষ্টি বিতরণ করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, পৌরসভার নির্মিত কিচেন মার্কেটে জায়গা নিয়ে জটিলতা জের ধরে মৎস ব্যবসায়ীরা প্রথমে পৌরশহরে এক সপ্তাহের জন্য মাছ বিক্রি বন্ধ রাখে। পরে মাছ বাজার নিয়ে আঞ্চলিক রাজনীতি কারণে সংকট আরো ঘনীভূত হতে থাকে। সংকট নিরসনের জন্য সিলেট-৬ আসনের সাংসদ ও সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলামে নাহিদের হস্তক্ষেপেও বিষয়টি কোনো সুরাহা হয়নি। পরে মৎস ব্যবসায়ীরা পৌরশহরের অদূরে কুড়ারবাজার ইউনিয়নের আব্দুল্লাহপুর এলাকায় অস্থায়ী মাছ বাজার বসিয়ে ব্যবসা করেন। বাজার বসানোর পর কয়েক দফা ব্যবসায়ীরা বৈঠকে বসলেও মৎস ব্যবসায়ীরা তাদের দাবিতে অনড় অবস্থানে থাকেন। 

এদিকে সম্প্রতি বিয়ানীবাজার পৌরসভার মেয়র ও মৎস ব্যবসায়ী নেতাদের অলোচনায় বিষয়টি সমাধানের পথ খুঁজে পায়। পৌরসভার নির্ধারিত স্থানে মৎস ব্যবসায়ীরা বাজার বসাতে সম্মতি জানায়। গতকাল বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিকভাবে মাছ বাজার প্রতিস্থাপনের উদ্বোধন করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কাশেম পল্লব, পৌর মেয়র আব্দুস শুক্কুর, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি সামসুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক এবাদ আহমদ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী আরিফুর রহমান প্রমুখ। 

মৎস্য ব্যবসায়ীদের নেতা ইমাম উদ্দিন বলেন, উপজেলাবাসীর ভোগান্তি দূর করতে এবং দায়িত্বশীলদের সাথে সফল আলোচনার মাধ্যমে আমরা মাছ বিক্রি শুরু করেছি। পৌর কৃর্তপক্ষ আমাদের দাবি মেনে নেওয়ায় আমরা পৌরশহরে এক বছর পর মাছ বিক্রি শুরু করেছি। আমাদের দুই পক্ষের মধ্যে সকল ভুলের অবসান হয়েছে।  

বিয়ানীবাজার পৌরসভার মেয়র আব্দুস শুকুর বলেন, ষড়যন্ত্র করে ভোগান্তি সৃষ্টি করা যায় কিন্তু সেটা দীর্ঘ সময়ের মধ্যে আটকে রাখা যায় না। আমরা দীর্ঘদিন থেকে যে আলোচনা চালিয়েছি আজ তা আলোর মুখ দেখেছে। এ বিষয়টির সমাধানে আন্তরিকভাবে কাজ করেছেন অনেকে। 

বিয়ানীবাজার উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কাশেম পল্লব বলেন, আলোচনার মাধ্যমে সব সমস্যা সমাধান সম্ভব। আজ সেটাই প্রমাণিত হয়েছে। মাছ ব্যবসায়ী নেতারা উপজেলাবাসীর ভোগান্তি দূর করতে পৌরশহরে ফিরে এসেছেন। দীর্ঘদিন থেকে আলোচনা অব্যাহত রাখায় একটা সমাধানে পৌঁছা সম্ভব হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা