kalerkantho

শনিবার । ২৪ আগস্ট ২০১৯। ৯ ভাদ্র ১৪২৬। ২২ জিলহজ ১৪৪০

আক্কেলপুরে তোপের মুখে প্রকৌশলী! (ভিডিও)

আক্কেলপুর (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি   

১৮ জুলাই, ২০১৯ ১৫:৪৯ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



জয়পুরহাট সড়ক ও জনপথ বিভাগের (সওজ) তত্ত্বাবধানে আক্কেলপুর উপজেলা সদরে সড়ক প্রসস্তকরণ কাজে শুরু থেকেই একাধিকবার কাজের মান নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ উঠছে। এ নিয়ে  স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের কাছে তোপের মুখে পড়েন সওজের উপসহকারী প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম। ঘটনাটি ঘটেছে গত (১৬ জুলাই) মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলা সদরের কিশোরের মোড় নামক স্থানে। এই ঘটনার পরে সড়ক সংষ্কার বন্ধ রয়েছে। পরে আওয়ামী লীগ নেতাদের প্রতিরোধের কারণে সড়কের কাজে ব্যবহৃত নিম্নমানের ইটের খোয়া সড়ক থেকে অপসারণ, সিসি ঢালাই কাজে মাপে কম দেওয়ার পরে পুনরায় সিসি ঢালাই দিতে বাধ্য হয় ঠিকাদার ও সওজ কর্তৃপক্ষ।
 
স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের দাবি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ও সওজ কর্তৃপক্ষকে সিডিউল অনুযায়ী কাজ করতে হবে। এখানে কোনও প্রকার অনিয়ম করার সুযোগ নেই, দেওয়া হবে না। জয়পুরহাট সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, পৌর এলাকার পশ্চিম আমুট্র তিন মাথা থেকে গোপীনাথপুর তিনমাথা (আক্কেলপুর উপজেলার সীমানা) পর্যন্ত ৮ কিলোমিটার ২৪৫ মিটার সড়ক প্রশস্তকরণ ও সংষ্কার কাজ চলছে। এর মধ্যে উপজেলা সদরের কিশোরের মোড় থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গেট পর্যন্ত ৭৪৫ মিটার স্থানে আর সিসি ঢালাই সড়ক ও তিনটি কালভার্ট নির্মাণ করা হবে। 
 
ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ইতিমধ্যে আক্কেলপুর পৌর শহরের কলেজ বাজার ও রেলগেট এলাকার পূর্ব-পশ্চিম পাশে আরসিসি ঢালাই ও দুটি কালভার্টের নির্মাণ কাজ শেষ করেছেন। এই কাজে ব্যায় ধরা হয়েছে ২২ কোটি টাকা। এমএম বির্ল্ডাস নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজটি করছেন।
 
স্থানীয় বাসিন্দা ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, উপজেলা সদরের পুরাতন থানা ভবনের কাছে গত শনিবার (১৩ জুলাই) এমএম বির্ল্ডাস নামের ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের লোকজন আরসিসি ঢালাই সড়কের জন্য সিসি ঢালাই কাজ শুরু করে। ওই সিসি ঢালায়ে ৪ ইঞ্চির জায়গায় কোথাও ৩ ইঞ্চি কোথাও ২ ইঞ্চি করে ঢালাই কাজ চলছিল। এসময় জেলা পরিষদের সদস্য ও  পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ন আহবায়ক আব্দুর রহিম স্বাধিন স্থানীয় লোকজনের উপস্থিতিতে কাজে অনিয়মের বিষয়টি জানতে চায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের লোকজনের কাছে। 
 
পরে ঘটনাস্থলে জয়পুরহাট সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-সহকারি আশরাফুল ইসলাম আসেন। সেখানে তিনিও ওই সিসি ঢালাই কাজে অনিয়মের সত্যতা পান। পরে গত সোমবার (১৫ জুলাই) সকালে ওই সিসি ঢালাইয়ের উপরে আবারও ঢালাই দেয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এর পর গত মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বিকেলে উপজেলা সদরের কিশোরের মোড় (চারমাথা) নামক স্থানে সিসি ঢালাই কাজ শুরু করে ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। 
 
সেখানেও অনিয়মের বিষয়টি স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা ধরে ফেলেন। এসময় সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-সহকারি আশরাফুল ইসলামকে ফের ওই স্থানে আনা হয়। ওই সময় তিনি স্থানীয় লোকজনের তোপের মুখে পড়েন। এক পর্যায়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের স হসভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সালাম আকন্দ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। 
 
সেখানে তিনি ওই কর্মকর্তাকে কড়া হুশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘এখানে ৪ ইঞ্চি সিসি ঢালাইয়ে কেন ৩ ইঞ্চি করে হলো। আপনি কেন দেখলেন না’। ‘এখন আপনার ৩ ইঞ্চি করে চুল কেটে দিব তখন ঘুরে বেড়াতে পারবেন তো?’ একটি রাস্তা সারাজীবনের জন্য এখানে আর ৫০-৬০ বছরের মধ্যে রাস্তা হবে না। এই জায়গাতে যদি আপনি অন্যায় করেন আর আপনার চুল কেটে দিলে আপনি ন্যারা হবেন আবার আপনার মাথায় চুল উঠবে কিন্তু রাস্তা তো আর ঠিক হবে না। দয়া করে মানসম্মত কাজ করেন। চুরির টাকার ভাগ আপনারা নিবেন না। দেশের কাজটাও আপনারা খারাপ করেন না। জনগনের টাকায় সড়কের কাজ হচ্ছে এখানে চুল পরিমান অনিয়ম আমরা করতে দেব না।  
 
স্থানীয় বাসিন্দা সৈয়দ সুহেল কালের কণ্ঠকে বলেন, কাজ শুরু থেকেই এই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি অনিয়ম করে আসছিল। আমরা একাধিকবার অনিয়মের বিষয়টি ধরে ফেলি। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতার শেল্টারে এইসব অনিয়ম করার সুযোগ পাচ্ছেন। আমরা এখানে কোনও অনিয়ম করার সুযোগ দেব না এবং সঠিকভাবে কাজ আদায় করে নেব।  
 
বজলুর রশিদ মন্টু কবিরাজ বলেন, পুরো ঢালাই সড়কে কোথাও শিডিউল অনুপাতে কাজ করেনি ঠিকাদার। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এমএম বির্ল্ডাসে সার্ভেয়ার এমদাদুল হক বলেন, রাস্তার কাজে কোথাও কোন অনিয়ম হয়নি। এখানে আর সিসি ঢালাইয়ে ১০০ মিলি সিসি ঢালাইয়ের উপরে ২৫০ মিলি (রড সহ) আর সিসি ঢালাই কাজ চলছে। এখান স্থানীয় লোকজন বিষয়গুলো বুঝতে পারছেন না। আমাদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে আপনাদের (স্থানীয় লোকজন) যে কোন লোকের উপস্থিতিতে আমরা কাজ করতে প্রস্তুত রয়েছি।  
 
কাজটির তদারকি কর্মকর্তা সওজের উপসহকারী প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম বলেন, আগের বার সিসি ঢালাইয়ের সময় কোন কারনে সেখানে উপস্থিত না থাকায় কিছুটা অনিয়ম হয়েছিল পরে তা ঠিক করে দেওয়া হয়েছে। তবে তিনি গত মঙ্গলবারের ঘটনায় কোন বক্তব্য দিতে রাজি হননি।
 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা