kalerkantho

সোমবার। ১৯ আগস্ট ২০১৯। ৪ ভাদ্র ১৪২৬। ১৭ জিলহজ ১৪৪০

চট্টগ্রামের চার ফ্লাইওভার

রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব চসিককে দেওয়ার উদ্যোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৮ জুলাই, ২০১৯ ০২:২৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব চসিককে দেওয়ার উদ্যোগ

চট্টগ্রাম নগরের চারটি ফ্লাইওভার রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনকে (চসিক) হস্তান্তর করার উদ্যোগ নিয়েছে নির্মাণকারী সংস্থা চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ)। ফ্লাইওভার হস্তান্তরের প্রক্রিয়া শুরুর জন্য গত রবিবার মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে সিডিএ। 
 
সিডিএর প্রধান প্রকৌশলী কাজী হাসান বিন শামস বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
নগরে চারটি ফ্লাইওভার হচ্ছে মুরাদপুর থেকে লালখানবাজার পর্যন্ত আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভার, শুলকবহর থেকে বহদ্দারহাটের এক কিলোমিটার এলাকা পর্যন্ত এম এ মান্নান ফ্লাইওভার, দেওয়ানহাট ফ্লাইওভার ও কদমতলী ফ্লাইওভার।
 
প্রকৌশলী কাজী হাসান বলেন, নগরে চারটি ফ্লাইওভার নির্মাণ করেছে সিডিএ। এসব ফ্লাইওভার এখনো রক্ষণাবেক্ষণ করছে সংস্থাটি। কিন্তু ফ্লাইওভারে রক্ষণাবেক্ষণে বিশাল অঙ্কের টাকা খরচ হচ্ছে। কিন্তু আয়ের উত্স না থাকায় প্রতিনিয়ত প্রতিবন্ধকতার শিকার হতে হচ্ছে। এ ছাড়া ফ্লাইওভার রক্ষণাবেক্ষণের কাজের জন্য কোনো কর্মীও নেই সিডিএর।
 
তিনি আরো বলেন, নিয়ম অনুযায়ী শহরের সড়কগুলো রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব সিটি করপোরেশনের। কিন্তু ফ্লাইওভারগুলো এত দিন হস্তান্তর করা হয়নি। তবে এরই মধ্যে এসব স্থাপনা হস্তান্তরের সিদ্ধান্ত হয়েছে। এ প্রক্রিয়া দ্রুত শেষ হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।
 
সিডিএর বোর্ড সদস্য হাসান মুরাদ বিপ্লব বলেন, নিয়ম অনুযায়ী সিটি করপোরেশন এলাকায় স্থাপনা নির্মাণ শেষে ওই সংস্থাকেই বুঝিয়ে দেওয়ার কথা। কিন্তু সেটি এত দিন হয়নি। তবে সিডিএর নতুন চেয়ারম্যান আসার পর ফ্লাইওভারগুলো রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব সিটি করপোরেশনকে দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়। 
 
এর আগে রক্ষণাবেক্ষণের খরচ মেটাতে ফ্লাইওভারের জায়গায় দোকান নির্মাণ করে সেটা ভাড়া দেওয়ার পাশাপাশি জমি ভাড়া দেওয়ার উদ্যোগ নেয় সিডিএ। তবে সিটি করপোরেশন ও পুলিশসহ সেবাদানকারী সংস্থাগুলোর বিরোধিতার কারণে সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসে সিডিএ। এ ছাড়া হাইকোর্ট দোকান নির্মাণ বন্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা