kalerkantho

সোমবার। ১৯ আগস্ট ২০১৯। ৪ ভাদ্র ১৪২৬। ১৭ জিলহজ ১৪৪০

নারী প্রশিক্ষণার্থীদের দিয়ে শরীর টেপান পিটিআই সুপার!

যশোর অফিস   

১৭ জুলাই, ২০১৯ ১৩:৪২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নারী প্রশিক্ষণার্থীদের দিয়ে শরীর টেপান পিটিআই সুপার!

যশোর পিটিআইএর সুপারিনটেনডেন্ট হাসানারুল ফেরদৌসের অনিয়ম-অত্যাচার থেকে মুক্তি চেয়ে আজ বুধবার যশোর প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন পিটিআইয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন পিটিআইয়ের ইনস্ট্রাক্টর মাহবুর আলম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন  ইনস্ট্রাক্টর আবু তালেব, ইনস্ট্রাক্টর আবু বকর সিদ্দিক।

লিখিত বক্তব্যে তারা জানান, হাসানারুল ফেরদৌস সুপারিনটেনডেন্ট হিসেবে যোগদানের পর থেকে পিটিআইতে নিজের অসৎ উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের জন্য কর্মকর্তা, কর্মচারী, পরীক্ষণ বিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং প্রশিক্ষণার্থীদের সঙ্গে অতিমাত্রায় দুর্ব্যবহার ও অশালীন আচরণ করেন। তিনি নারী প্রশিক্ষণার্থীদের দিয়ে শরীর ম্যাসেজ করিয়ে নেন। মহিলা ইনস্ট্রাক্টরদের সাথে অশালীন আচরণ ও মানসিক অত্যাচার করেন। স্টাফদের সর্বদা অকথ্য ও অশ্লীল ভাষায় গালমন্দ করেন এবং মানসিক চাপে রাখেন। আইসিটি ট্রেনিং এর সাপোর্ট সার্ভিসের অর্থ আত্মসাৎকারী সুপারিনটেনডেন্ট সহকর্মীদের সাথে প্রতিহিংসাপরায়ণ আচরণ করেন। কথায় কথায় নিজের ডান হাত সম্প্রসারিত করে 'আমার হাত এর চেয়েও লম্বা' বলে তিনি নিজের শ্রেষ্ঠত্ব জাহির করেন। তিনি ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে অফিস সহকারী তিনজনকে বদলি করেছেন, যার কারণে অফিস সহকারী ছাড়াই চলছে পিটিআই অফিস। এ ছাড়া তার অপকর্ম ঢাকার জন্য চারজন ইনস্ট্রাক্টরকে দুর্গম এলাকায় বদলি করেছেন। 

সুপারিনটেনডেন্টের এমন সব অস্বাভাবিক কার্যক্রমে পিটিআইয়ের কার্যক্রম স্থবির হয়ে বর্তমান সরকারের মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করার অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এমন কর্মকাণ্ড থেকে মুক্তি পেতে কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা