kalerkantho

মঙ্গলবার। ২০ আগস্ট ২০১৯। ৫ ভাদ্র ১৪২৬। ১৮ জিলহজ ১৪৪০

কালকিনিতে চিকিৎসকের বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ

কালকিনি (মাদারীপুর) প্রতিনিধি   

১৬ জুলাই, ২০১৯ ২০:৩৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কালকিনিতে চিকিৎসকের বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ

মাদারীপুরের কালকিনিতে মো. রকিবুজ্জামান নামে এক চিকিৎসকের বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ এনে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন এক ভুক্তভোগীর পরিবার। মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় প্রেস ক্লাবে এ সাংবাদিক সম্মেলন করা হয়।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় দ্বন্দ্বের জের ধরে সম্প্রতি কালকিনি উপজেলার আলীনগর এলাকায় মো. জিয়াবুল মোল্লাকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এর জেরধরে গত ১৭ জুন একই এলাকার গনি হাওলাদারের নীরিহ কৃষকপুত্র মো. জয়নাল হাওলাদারকে হত্যার উদ্দেশ্যে তার মাথার ওপর কুপিয়ে গুরুতর আহত করে ওই এলাকার সামচুল হক হাওলাদার, বজলু হাওলাদার ও রুহুল আমিন মুন্সিসহ বেশ কয়েকজন যুবক। পরে আহত অবস্থায় মো. জয়নাল হাওলাদারকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রথমে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে বরিশাল সেবাচিম হাসাপাতালে চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করে তোলা হয়। এ ঘটনায় ৩৯ জনকে আসামি করে কালকিনি থানায় একটি মামলা দায়ের করেন আহত জয়নালের পরিবার।

কিন্তু কালকিনি হাসপাতালের সহকারী সার্জন চিকিৎসক মো. রকিবুজ্জামান অনিয়ম ও দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে আসামি পক্ষের সাথে যোগসাজস করে সঠিক সনদ না দিয়ে একটি সাধারণ সনদ দেন। এতে করে ওই মামলার আসামিরা সহজেই পার পেয়ে যায়। এ ঘটনার তিব্র নিন্দা জানিয়ে ও চিকিৎসক রকিবুজ্জামানের বিচার দাবিতে সাংবাদিক সম্মেলন করা হয়।

ভুক্তভোগী মো. জয়নাল হাওলাদার সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ করেন বলেন, আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে আমার মাথার ওপর কুপিয়ে আহত করা হয়। কিন্তু ডাক্তার রকিবুজ্জামান দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে হাসপাতাল থেকে সঠিক সনদ না দিয়ে মামলার আসামি পক্ষের থেকে টাকা নিয়ে মিথ্যা একটি সনদ দাখিল করেন। এতে করে আমি চরম ক্ষতির মুখে পড়েছি।

অভিযুক্ত চিকিৎসক মো. রকিবুজ্জামান বলেন, আমি যেটা সঠিক পেয়েছি সেটাই দিয়েছি।

এ ব্যাপারে কালকিনি হাসপাতালে আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার মো. রেজাউল করিম বলেন, আমরা তাৎক্ষণিকভাবে প্রথমে একটি সনদ দিয়েছিলাম। এখন বরিশাল থেকে রিপোর্ট দিলে সে অনুযায়ী আমরা চূড়ান্ত সনদ দেব।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা