kalerkantho

রবিবার। ১৮ আগস্ট ২০১৯। ৩ ভাদ্র ১৪২৬। ১৬ জিলহজ ১৪৪০

চাঁদা দাবি ও হত্যাচেষ্টা মামলায় পৌর কাউন্সিলর কারাগারে

ঝালকাঠি প্রতিনিধি   

১৬ জুলাই, ২০১৯ ১৬:৩১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চাঁদা দাবি ও হত্যাচেষ্টা মামলায় পৌর কাউন্সিলর কারাগারে

চাঁদা দাবি ও হত্যাচেষ্টা মামলায় ঝালকাঠি পৌরসভার কাউন্সিলর, হ্যান্ডলিং শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আওয়ামী লীগ নেতা হুমায়ুন কবির খান এবং তার ভাই রুবেল খানকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে ঝালকাঠির সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির হয়ে তারা জামিন আবেদন করেন। বিচারক এ এইচ এম ইমরানুর রহমান জামিন নামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। হুমায়ুন কবির খান পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। 

মামলার বিবরণে জানা যায়, ঝালকাঠি পৌরসভার পারকিফাইত নগর এলাকার নজরুল ইসলাম তার জমিতে বসতঘর উত্তোলনের কাজ শুরু করেন। এতে বাধা দেন কাউন্সিলর হুমায়ুন কবির খান ও তার লোকজন। জমিতে ঘর তুলে বসবাস করতে হলে তাদের দুই লাখ টাকা চাঁদা দিতে হবে বলে হুমকি দেন। টাকা না দেওয়ায় ১৩ জুন রাতে নজরুল ইসলামকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করেন হুমায়ুন কবির খান ও তার লোকজন। এ ঘটনায় নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে ১৩ জনকে আসামি করে গত ২০ জুন ঝালকাঠির সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নালিশি অভিযোগ দায়ের করেন। আদালত অভিযোগটি ঝালকাঠি থানার ওসিকে এফআইর হিসেবে লিপিবদ্ধ করার নির্দেশ দেন। এ মামলায় তিনি হাজির হয়ে জামিন চাইলে, আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। পশ্চিম ঝালকাঠি এলাকার জেহাদ ব্যাপারী নামে এক শ্রমিককে ১৫ জুন হত্যাচেষ্টার ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় কাউন্সিলর হুমায়ুন কবির খানের ভাই রুবেল খানকেও কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন একই আদালত।  

বাদী পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট আক্কাস সিকদার ও বনি আমিন বাকলাই এবং আসামি পক্ষে অ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান মনু ও আনোয়ার হোসেন খোকন মোল্লা। এদিকে হুমায়ুন কবির খান ও তার বাহিনীর হাতে নির্যাতিত পশ্চিম ঝালকাঠি এলাকার লোকজন গত ২৪ জুন শহরের কোর্ট রোডে মানববন্ধন করে। মানববন্ধনে তারা হুমায়ুন কবিরের বিচার দাবি করেন। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা