kalerkantho

মঙ্গলবার। ২০ আগস্ট ২০১৯। ৫ ভাদ্র ১৪২৬। ১৮ জিলহজ ১৪৪০

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য কাজ করছে

বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ জুলাই, ২০১৯ ০০:৩১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম

ছবি: কালের কণ্ঠ

দেশের উত্তর, পূর্ব এবং মধ্যাঞ্চলে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত জনগণের জন্য কাজ করছে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি। আকস্মিক এই বন্যা মোকাবিলায় সব ধরনের প্রস্তুতিও রয়েছে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির। বন্যায় করণীয় ঠিক করতে প্রস্তুতি সভাও অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ক্ষয়ক্ষতির তথ্য সংগ্রহের লক্ষ্যে খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম। এ ছাড়াও প্রস্তুত রাখা হয়েছে ন্যাশনাল ডিজাস্টার রেসপন্স টিম ((NDRT), ন্যাশনাল ডিজাস্টার ওয়াটসন রেসপন্স টিম (NDWRT), ইউনিট ডিজাস্টার রেসপন্স টিম (UDRT) টিমের সদস্যসহ ক্ষতিগ্রস্ত জেলা রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের স্বেচ্ছাসেবকদের। সোসাইটির স্বাস্থ্য বিভাগের দায়িত্বরত পরিচালক ইকরাম ইলাহী চৌধুরী জানান, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের চিকিৎসাসেবা প্রদানের লক্ষ্যে ২টি মেডিক্যাল টিম ও প্রয়োজনীয় ওষুধ প্রস্তুত রাখা হয়েছে। তিনি বলেন, পরিস্থিতি বিবেচনায় এর সংখ্যা আরো বাড়ানো হবে।

ডিজাস্টার রেসপন্স বিভাগের পরিচালক বেলাল হোসেন জানান, বন্যায় ক্ষয়ক্ষতির তথ্য সংগ্রহের জন্য খোলা হয়েছে বিডিআরসিএস “কন্ট্রোল রুম”। সব ধরনের তথ্যের জন্য ফোন করতে পারেন +০০৮৮-০২-৯৩৫৫৯৯৫ (সরাসরি), ০১৭২০৯৭৭৮৭৭, PABX# ৯৩৩০১৮৮, ৯৩৩০১৮৯, ৯৩৫০৩৯৯-২৮২ এই নম্বরে।

আজ শনিবার সকাল ১০টায় সোসাইটির কনফারেন্স রুমে বন্যা পরিস্থিতি পর্যালোচনা ও করণীয় ঠিক করতে এক প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রস্তুতি সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির মহাসচিব মো. ফিরোজ সালাহ্ উদ্দিন। আলোচনায় অংশ নেয়, সোসাইটির উপমহাসচিব মো. রফিকুল ইসলাম, ডিজাস্টার রেসপন্স বিভাগের পরিচালক জনাব বেলাল হোসেনসহ সোসাইটির সব বিভাগের দায়িত্বরত পরিচালক, ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অফ রেডক্রস এন্ড রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিজ (IFRC), ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অব দ্যা রেড ক্রস (ICRC) ও পার্টনার অফ ন্যাশনাল সোসাইটির প্রতিনিধিরা।

সোসাইটির ডিজাস্টার রেসপন্স বিভাগ জানায়, জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলায় মজুদ রাখা হয়েছে পর্যাপ্ত পরিমানে হাইজন কিটস্, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট (Water purification tablet), তারপলিন শীট (Tarpaulin sheet), জেরি-ক্যান (Jerry-can) ওরস্যালাইনসহ প্রয়োজনীয় ওষুধ। এছাড়াও দুর্গত মানুষদের নিরাপদ পানি সরবরাহের লক্ষ্যে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উদ্যোগে Mobile water purification plants ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় স্থাপন করা হবে। যার মাধ্যমে নদী/জলাশয়ের পানিকে বিশুদ্ধ করে বন্যার্তদের মাঝে প্রতিনিয়ত নিরাপদ পানি সরবরাহ করা যাবে।

বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির মহাসচিব মো. ফিরোজ সালাহ্ উদ্দিন বলেন, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যার্থে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি সার্বক্ষণ প্রস্তুত রয়েছে। বন্যাকালীন এবং বন্যা পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য জরুরি সাড়া প্রদানকারী টিমসহ সব কর্মকর্তাকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এ ছাড়াও ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তায় সোসাইটির সকল মুভমেন্ট পার্টনারকে এগিয়ে আসার আহবান জানানো হয়েছে।

যুব ও স্বেচ্ছাসেবক বিভাগ জানায়, ক্ষতিগ্রস্ত জেলাগুলোতে স্বেচ্ছাসেবকরা ইউনিটের সহযোগিতায় শুকনা/রান্না খাবার বিতরণ করছে। পাশাপাশি স্থানীয় প্রশাসনকে সব ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত রেখেছে।

এ ছাড়াও চট্রগ্রামসহ পাবর্ত্য জেলা গুলিতে পাহাড় ধ্বসের কারণে ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসকারী জনগণকে সরিয়ে নিতে সর্তকতামূলক প্রচারণা এবং তাদেরকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিতে কাজ করছে স্বেচ্ছাসেবকরা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা