kalerkantho

শনিবার । ২৪ আগস্ট ২০১৯। ৯ ভাদ্র ১৪২৬। ২২ জিলহজ ১৪৪০

মাধবপুরে বৃদ্ধার লাশ উদ্ধার

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৫ জুলাই, ২০১৯ ২৩:১৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মাধবপুরে বৃদ্ধার লাশ উদ্ধার

প্রতীকী ছবি

হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের কাজীরচক গ্রামের একটি গোয়ালঘর থেকে সোমবার দুপুরে নুরজাহান বেগম (৬০) নামে এক বৃদ্ধা মায়ের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এটি আত্মহত্যা না হত্যা এ নিয়ে নানা গুঞ্জন চলছে এলাকায়। নুরজাহান বেগম ওই গ্রামের আব্দুল জালালের তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানায়, প্রতিদিনের মতো গোয়ালঘরে নুরজাহান রাতে ঘুমায়। অনেক বেলা গরিয়ে গেলেও সে ঘর থেকে বের হচ্ছিল না। পরে ঘরের একটি জানালা ভেঙে ভেতরে গিয়ে বাড়ির লোকজন দেখতে পায় বৃদ্ধা নুরজাহান ঘরের তীরের সঙ্গে ফাঁস লাগানো ঝুলন্ত লাশ। এ ঘটনার পর তার একমাত্র ছেলে শাহ আলম ও ছেলের বউ দুধ বানু পালিয়ে যায়। এতে করে বৃদ্ধা নুরজাহানের মৃত্যু নিয়ে রহস্যের দানা বেঁধেছে।

পুলিশ সূত্র জানায়, তার একমাত্র ছেলে দুবাই প্রবাসী শাহ আলম প্রায় দুই বছর পূর্বে দুধবানু নামে এক মেয়েকে বিয়ে করে। ছেলে বধূ ঘরে আসার কিছুদিন পর থেকেই তার সংসারে অশান্তির সৃষ্টি হয়। পুত্রবধূর মানসিক অত্যাচারে বিপর্যস্ত ছিল নুরজাহান। 

ঠিকমতো খাবার দাবারও জুটত না এ বৃদ্ধা মায়ের। একপর্যায়ে তার ঠাঁই হয় গোয়াল ঘরে। সেখানেই সে অমানবিকভাবে রাত্রীযাপন করে একা একি। রবিবার রাতের কোনো এক সময় ঘরের তীরের সঙ্গে ঝুলে থাকে এই হতভাগ্য মায়ের লাশ। পারিবারিকভাবে শাহআলম প্রচার করে তার মা ঘরের তীরের সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। 

কিন্তু সে ও তার স্ত্রী দুধবানু বাড়ি ঘর ছেড়ে ঘটনার পর থেকেই গা ঢাকা দিয়েছে।

খবর পেয়ে কাশিমনগর পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক আব্দুর রহমান গোয়ালঘরের মেঝে থেকে হতভাগ্য মা নুরজাহান বেগমের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে।

এ ব্যাপারে মাধবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কেএম আজমিরুজ্জামান বলেন, এ বৃদ্ধাকে তার পুত্রবধূ মানসিক নির্যাতন করত। তবে ময়নাতদন্ত রিপোর্ট ছাড়া এ মৃত্যু সম্পর্কে কিছু নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা