kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বগুড়া প্রেসের উদ্বোধন করলেন বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া   

৮ জুলাই, ২০১৯ ০৯:৫৮ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বগুড়া প্রেসের উদ্বোধন করলেন বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি

যাত্রা শুরু করল ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের বগুড়া প্রেস ইউনিট। এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করলেন বসুন্ধরা গ্রুপ ও ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর। বগুড়াসহ উত্তরাঞ্চল এবং দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের (রাজশাহী, রংপুর বিভাগের সব জেলা ও খুলনা বিভাগের সাতক্ষীরা, যশোর, চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ, কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, মাগুরা জেলা) পাঠকের হাতে প্রতিদিন সবার আগে পত্রিকা পৌঁছে দিতেই এ উদ্যোগ।

এ উপলক্ষে রবিবার দুপুর ১২টায় বগুড়া শহরের কালীবালা দ্বিতীয় বাইপাস সড়কে প্রেস প্রাঙ্গণে ফিতা কেটে অনুষ্ঠানের সূচনা করেন বগুড়া-১ (সারিয়াকান্দি-সোনাতলা) আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নান। উদ্বোধন শেষে সুধী সমাবেশে বক্তব্যে সায়েম সোবহান আনভীর বগুড়া ইউনিটের সার্বিক সফলতা ও সবার সহযোগিতা  প্রত্যাশা করেন।

বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজামের সঞ্চালনায় সুধী সমাবেশে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মান্নান এমপি ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের অগ্রযাত্রাকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, বসুন্ধরা গ্রুপ দেশের কল্যাণে কাজ করছে। দেশসেরা দুটি দৈনিক পত্রিকা বগুড়া থেকে প্রকাশিত হবে, যা অত্যন্ত আনন্দের। ইলেকট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ার কল্যাণে দ্রুত খবর পৌঁছে যাচ্ছে মানুষের কাছে। তার পরও প্রিন্ট মিডিয়ার গুরুত্ব রয়েছে। দেশ যত দিন থাকবে তত দিন প্রিন্ট মিডিয়া থাকবে। বগুড়া অঞ্চল সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতায় দেশের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ স্থান নিয়ে আছে। উত্তরবঙ্গের রাজধানী বগুড়া। তিনি প্রত্যাশা করেন, এ অঞ্চলের মানুষের সুখ, দুঃখ, সমস্যা এবং এর সমাধানের বিষয়গুলো কালের কণ্ঠ, বাংলাদেশ প্রতিদিন তুলে ধরে বগুড়াকে আরো এগিয়ে নেবে।

কালের কণ্ঠ সম্পাদক বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন বগুড়া প্রেস ইউনিটের শুভ কামনা প্রত্যাশা করে বলেন, ‘উত্তর জনপদে আমরা সবার আগে সবার কাছে পত্রিকা পৌঁছে দিতে চাই। সে লক্ষ্যেই বগুড়া ইউনিট কাজ করবে।’ তিনি বলেন, ‘আমরা সাধারণ মানুষের কথা বলতে চাই। উত্তরাঞ্চলের সুখ-দুঃখ তুলে ধরতে চাই।’

বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম বলেন, ‘ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের ঢাকার পরে বগুড়া হবে কেন্দ্র। বগুড়া আমাদের স্বপ্নের জায়গা। আমরা বগুড়াকে আরো এগিয়ে নিতে চাই। গোটা উত্তর জনপদের উন্নয়নের সঙ্গে থাকবে ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ। বগুড়াসহ উত্তর জনপদের মানুষের সঙ্গে আমাদের বন্ধন আরো সুদৃঢ় হবে।’ তিনি বলেন, ‘আমরা এই মিডিয়া গ্রুপকে আরো এগিয়ে নিতে চাই। এই ধারাবাহিকতায় বিনোদনমূলক ও খেলাধুলা সম্প্রচারের জন্য আরো একটি টেলিভিশন চ্যালেন করা হচ্ছে। এটি হলে ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ আরো এক ধাপ এগিয়ে যাবে।’

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন বগুড়ার পুলিশ সুপার আরিফুর রহমান মণ্ডল বিপিএম, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মুক্তিযোদ্ধা শোকরানা, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আবু সুফিয়ান সফিক এবং টিএমএসএস প্রতিনিধি আয়েশা আক্তার।

অনুষ্ঠানে বিশিষ্টজনদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ডেইলি সান পত্রিকার সম্পাদক এনামুল হক চৌধুরী, কালের কণ্ঠ’র নির্বাহী সম্পাদক মোস্তফা কামাল, নিউজ টোয়েন্টিফোরের হাসনাইন খুরশিদ, বগুড়া প্রেস ক্লাব সভাপতি মোজাম্মেল হক, জেলা পরিষদ সদস্য সাহাদারা মান্নান, পুলিশ লাইনস স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ শাহাদৎ আলম ঝুনু, জেলা ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি আব্দুল মান্নান আকন্দ, জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম ডাবলু, গাক (গ্রাম উন্নয়ন কর্ম)-এর নির্বাহী পরিচালক খন্দকার আলমগীর হুসাইন, কালের কণ্ঠ বগুড়া ব্যুরো প্রধান লিমন বাসার, বাংলাদেশ প্রতিদিন বগুড়ার স্টাফ রিপোর্টার আব্দুর রহমান টুলু, কালের কণ্ঠ’র ফটো সাংবাদিক ঠান্ডা আজাদ, শুভসংঘের সভাপতি আব্দুস সালাম বাবু, সাধারণ সম্পাদক শিশির মোস্তাফিজ, বগুড়া প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আখতারুজ্জামান, আরিফ রেহমান, ডা. এস এম মিল্লাত হোসেনসহ সাংবাদিক সুধীজন। এ ছাড়া বসুন্ধরা গ্রুপ ও ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

পরে হোটেল মমইনে ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীরসহ অন্য অতিথিদের স্বাগত জানান টিএমএসএস নির্বাহী পরিচালক ড. হোসনে-আরা বেগম ও বিসিএল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক টি এম আলী হায়দার।

উল্লেখ্য, বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতিষ্ঠান ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের বগুড়া প্রেস ইউনিট থেকে কালের কণ্ঠ, বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকা ছাপা হবে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি প্রেস ইউনিট থেকে সরাসরি সম্প্রচার করে নিউজ টোয়েন্টিফোর।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা