kalerkantho

বুধবার । ২৪ জুলাই ২০১৯। ৯ শ্রাবণ ১৪২৬। ২০ জিলকদ ১৪৪০

নীতিমালা উপেক্ষা করে পুকুর খনন : কমছে আবাদি জমি

তাড়াশ-রায়গঞ্জ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৭ জুন, ২০১৯ ১৭:২৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নীতিমালা উপেক্ষা করে পুকুর খনন : কমছে আবাদি জমি

সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলায় নীতিমালা উপেক্ষা করে পুকুর খনন করায় কমে যাচ্ছে আবাদি জমি। সেই সাথে পুকুরের পাড় হিসেবে সরকারি খাল, নালা বন্ধ করায় জলাবদ্ধতাসহ বন্যায় ডুবে যাওয়ার আশঙ্কা করছে স্থানীয়রা। ধান চাষে লাভ কম হওয়ায় এবং মাছ চাষে অধিক লাভ হওয়ায় গণহারে পুকুর খনন করা হচ্ছে মর্মে কৃষকরা জানিয়েছেন। তবে তাড়াশ সহকারী কমিশনার (রাজস্ব) অফিস সূত্র জানায়, কৃষিজমির শ্রেণি পরিবর্তন না করে পুকুর খনন করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

তাড়াশ উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের সূত্র জানায়, ২০১৪ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত এ উপজেলায় ৫১৫টি পুকুর অপরিকল্পিতভাবে খনন করা হয়েছে। এতে করে ৩১৫ হেক্টর কৃষিজমি কমে গেছে। যার ফলে শস্যভাণ্ডার খ্যাত তাড়াশ উপজেলায় ফসল উৎপাদনে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে।

এ প্রসঙ্গে তাড়াশ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, জমির শ্রেণি পরিবর্তন করে পুকুর খনন সম্পূর্ণ বেআইনি। যার ফলে এ উপজেলায় কৃষিজমি কমে আসছে। তাড়াশ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইফ্ফাত জাহান বলেন, পুকুর খনন বন্ধে আইনি পদক্ষেপ গ্রহন করেছি। ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে কয়েকজনকে জেল-জরিমানা করা হয়েছে। তবে জনসচেতনতা সৃষ্টি না হলে এ সমস্যা সমাধান সম্ভব নয়।

মন্তব্য