kalerkantho

বুধবার । ২৪ জুলাই ২০১৯। ৯ শ্রাবণ ১৪২৬। ২০ জিলকদ ১৪৪০

সোনারগাঁয়ে মিটার গ্রাহকদের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের দাবি

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৬ জুন, ২০১৯ ২১:৫০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সোনারগাঁয়ে মিটার গ্রাহকদের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের দাবি

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলায় প্রিপেইড মিটার লাগাতে বাঁধা দেওয়ায় গ্রাহকদের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জ পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি ১ এর মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, প্রিপেইড মিটার বন্ধ ও বাংলা বাজারের দরিদ্র চা দোকানদার শাখাওয়াত হোসেনের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে মানব বন্ধন করেছে এলাকাবাসী।

আজ বুধবার সকালে উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়নের বাংলা বাজার ব্যবসায়ী সমিতি ও আশপাশের কয়েকটি গ্রামের শতশত নারী পুরুষ মানববন্ধনে অংশ নেন। 

এ সময় বক্তারা বলেন, নারায়ণগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ১ এর নতুন প্রিপেইড মিটার স্থাপনে নানা রকম হয়রানি, অনিয়ম, মিটার ভাড়া ও ডিমান্ড চাজ বৃদ্ধির কারণে এটি গরিব মারার মিটার হিসেবে ইতোমধ্যেই পরিচিত। তাই গরিব অসহায় মানুষ এ মিটারের আতঙ্কে আছে। গত সোমবার এ এলাকায় প্রিপেইড মিটার লাগাতে আসতে গরিব চা দোকানদার শাখাওয়াত হোসেন লাইনম্যানদেও বলেন, স্যার আমি গরিব মানুষ, এমনিতেই চলতে পারি না। আমার দোকানে পূর্বেও ডিজিটাল মিটারটি থাকুক, এটি লাগাবেন না। প্রিপেইড মিটার সংযোগে বাঁধা দেওয়ায় লাইনম্যানদের সাথে তার বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে উভয়ের মধ্যে হাতাহাতি হয়। এর জের ধরে সোমবার বিকেলে সোনারগাঁ পল্লী বিদ্যুতের পক্ষ থেকে একটি মামলা দায়ের করা হয়। সে মামলায় শাখাওয়াতকে রাতেই পুলিশ গ্রেপ্তার করে।

শাখাওয়াতের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানিয়ে তারা জানান, প্রয়োজনে আমরা কঠোর কর্মসূচি গ্রহণ করবো। শেখ হাসিনার সরকার জনগণের সরকার। জামাত-বিএনপি থেকে আসা কিছু অসাধু কর্মকর্তা সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য সাধারণ মানুষের ওপর অত্যাচারের স্টিমরোলার চালাচ্ছে। পল্লী বিদ্যুতের সাজানো মামলায় সাজানো শাখাওয়াতের গ্রেপ্তারের তীব্র নিন্দা জানান।

মানববন্ধনে বক্তারা প্রিপেইড মিটারের নানা অসংগতি, অনিয়ম ও হয়রানির কথা সবার কাছে তুলে ধরেন। তারা সরকারের কাছে এই প্রিপেইড মিটার লাগানো বন্ধ ও শাখাওয়াতের মুক্তির আহ্বান জানান। অন্যথায় ভবিষ্যতে আরো কঠোর কর্মসূচির ডাক দেওয়া হবে বলেও জানান তারা।

বাংলাবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সদস্যরা জানান, প্রিপেইড মিটারে প্রতিদিন টাকা রিচার্জ করলে প্রতিদিনই একমাসের সার্ভিস চার্জ কেটে নেয়। তা সাধারণ মানুষের জন্য জুলুম হয়ে যায়। রাক্ষুসী এ মিটারের বিরুদ্ধে সারাদেশের মানুষ যখন আন্দোলন করছে, সেখানে সোনারগাঁয়ের সাধারণ গ্রাহকদের মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেপ্তার, হয়রানি ও ভয়ভীতি দেখিয়ে জোড়পূর্বক মিটার বসাতে বাধ্য করছে।

এ ব্যাপারে সোনারগাঁ পল্লী বিদ্যুৎ এর ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) জোনাব আলী বলেন, আমাদের লোকজনকে মারধর ও ভাঙচুরের অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মানববন্ধনে বক্তাদের মিথ্যা মামলার অভিযোগের পেক্ষিতে বলেন, পুলিশ তদন্ত করলেই সত্য মিথ্যা প্রমাণিত হবে।

সোনারগাঁ থানার ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের দায়ের করা মামলায় একজনকে গ্রেপ্তার করে জেলা আদালতে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য