kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৬ জুলাই ২০১৯। ১ শ্রাবণ ১৪২৬। ১২ জিলকদ ১৪৪০

বিশ্বনাথে পুলিশ-ডাকাত গোলাগুলি, ৫ পুলিশ আহত, আটক ১

বিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিনিধি   

২৬ জুন, ২০১৯ ১৭:২৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিশ্বনাথে পুলিশ-ডাকাত গোলাগুলি, ৫ পুলিশ আহত, আটক ১

সিলেটের বিশ্বনাথে ডাকাতদলের সঙ্গে পুলিশের গোলাগুলি হয়েছে। এ সময় ডাকাতের গুলিতে আহত হন বিশ্বনাথ থানার পুলিশের পাঁচ সদস্য। মঙ্গলবার দিবাগত গভীর রাতে উপজেলার খাজাঞ্চী ইউনিয়নের কুড়িখলা গ্রামের এ ঘটনা ঘটে। এ সময় আকুল মিয়া (২৮) নামের এক কুখ্যাত ডাকাতকে অস্ত্রসহ আটক করতে সক্ষম হয় পুলিশ। সে উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের নওধার গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে। 

আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন বিশ্বনাথ থানার এসআই দেবাশীষ শর্ম্মা, এএসআই পরিমল চন্দ্র শীল, জামাল খান, কনস্টেবল আবদুল হক ও আবুল কালাম। আহতদেরকে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে এএসআই পরিমল চন্দ্র শীলের অবস্থা গুরুতর বলে জানা গেছে।

পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ১০/১২ জনের একটি ডাকাতদল লামাকাজী ইউনিয়নের একটি বাড়িতে ডাকাতি করার উদ্দেশ্যে এলাকায় প্রবেশ করে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সংবাদটি জানতে পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ওসমানীনগর সার্কেল) সাইফুল ইসলাম, বিশ্বনাথ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামসুদ্দোহা ও পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ দোলাল আকন্দের নেতৃত্বে একদল পুলিশ অভিযানে নামে। রাত ১টা ১৫ মিনিটে স্থানীয় খাজাঞ্চী ইউনিয়নের কুড়িখলা গ্রামের মসজিদের পার্শ্ববর্তী ব্রিজের কাছে গেলে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়তে থাকে ডাকাতদল। 
এ সময় ডাকাতদলের সাথে পুলিশের ২৪-২৫ রাউন্ড গুলিবিনিময় হয়। গোলাগুলিতে এলাকার সাধারণ মানুষের মাঝে আতঙ্কা ছড়িয়ে পড়ে। গুলি ছুড়তে ছুড়তে একপর্যায়ে ডাকাতদল পালাতে থাকলে ১টি দেশীয় পাইপগান, ২টি কার্তুজ, ১টি বড় শাবল, ৩টি ছোট শাবল, ১টি কোমরের বেল্ট ব্যাগ ও ২টি ব্যাগসহ ডাকাত আকুল মিয়াকে আটক করতে সক্ষম হয় পুলিশ। এ সময় ডাকাতদলের গুলিতে আহত হন থানা পুলিশের ৫ সদস্য।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বিশ্বনাথ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামসুদ্দোহা বলেন, আটককৃত আকুল মিয়া একজন কুখ্যাত ডাকাত। তার বিরুদ্ধে ডাকাতি, অস্ত্র ও হত্যাসহ ৮টি মামলা রয়েছে। আহত পুলিশ সদস্যদের ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা