kalerkantho

বুধবার । ২৪ জুলাই ২০১৯। ৯ শ্রাবণ ১৪২৬। ২০ জিলকদ ১৪৪০

মাদরাসাছাত্রীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ, অভিযুক্ত গ্রেপ্তার

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

২৫ জুন, ২০১৯ ২১:০১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মাদরাসাছাত্রীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ, অভিযুক্ত গ্রেপ্তার

হাটহাজারী উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নে নাশকতা ও ভাঙচুর মামলার আসামি সুমনের (৩০) বিরুদ্ধে ৬ষ্ঠ শ্রেণির এক মাদরাসাছাত্রীকে জোরপূর্বক ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। গত সোমবার দিবাগত রাত ১১টায় উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। রক্তাক্ত অবস্থায় ওই শিশু চট্টগ্রাম মেডিক্যেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ অভিযুক্ত সুমনকে মঙ্গলবার দুপুরে গ্রেপ্তার করেছে। সুমন মির্জাপুর ইউনিয়নের কালা বাদশা পাড়ার শফি মাস্টারের পুত্র। এ ঘটনায় আজ এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলার প্রক্রিয়া চলছে বলে থানা সূত্র জানিয়েছে। 

সূত্রে জানা গেছে, বখাটে ও বেকার যুবক সুমন গত সোমবার দিবাগত রাত ১১টায় ওই মাদাসাছাত্রীকে ফুসলিয়ে বাড়ির পার্শ্ববর্তী একটি স্থানে নিয়ে মুখ চেপে ধরে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় ওই শিশুকে উদ্ধার করে রাত সাড়ে ১১টায় হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হওয়ায় আশঙ্কাজনক অবস্থায় সেখান থেকে ওই শিশুকে দ্রুত চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। 

হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার ইমতিয়াজ সাংবাদিকদের বলেন, রাত সাড়ে এগারটায় ওই শিশুকে রক্তাক্ত অবস্থায় জরুরি বিভাগে নিয়ে আসা হয়। পরে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য দ্রুত চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

ঘটনার শিকার ওই শিশুর পিতা বলেন, আমারা মেয়েকে জোর করে ধর্ষণ করেছে সুমন। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। আমি  ধর্ষক সুমনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

হাটহাজারী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) বেলাল উদ্দিন জাহাঙ্গীর গতরাতে বলেন, ঘটনা অবগত হয়ে আমরা মঙ্গলবার দুপুরে ধর্ষনের ঘটনায় অভিযুক্ত সুমনকে চারিয়া এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছি। এ ঘটনায় থানায় ধর্ষনের মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে উল্লেখ করে ওসি বলেন, সুমন নাশকতা ও ভাঙচুর মামলার জেল খাটা আসামি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা