kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৬ জুলাই ২০১৯। ১ শ্রাবণ ১৪২৬। ১২ জিলকদ ১৪৪০

ঝালকাঠিতে বিএনপি সম্পাদকের পদ স্থগিত

ঝালকাঠি প্রতিনিধি   

২০ জুন, ২০১৯ ০৩:২২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঝালকাঠিতে বিএনপি সম্পাদকের পদ স্থগিত

দলীয় বিশৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে ঝালকাঠি জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম নুপুরের পদ স্থগিত করেছে কেন্দ্রীয় বিএনপি। বুধবার দুপুরে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ তথ্য জানা যায়।

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, এ বছরের ১৬ এপ্রিল জেলা বিএনপির সাধারণ সভা শেষে হাঙ্গামা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে আপনি (নুপুর) দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছেন। এ বিষয়ে কেন্দ্র কর্তৃক গঠিত তদন্ত টিমের প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে আপনাকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেওয়া হয়। আপনার (নুপুর) জবাব প্রাপ্তির পর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক পদ পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত করা হয়েছে। 

এর আগে গত ১ জুন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম নুপুরকে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে কারণ দর্শানো নোটিশ দেয় কেন্দ্রীয় বিএনপি। এতে উল্লেখ করা হয়েছিল, গত ১৬ এপ্রিল ঝালকাঠি জেলা বিএনপির এক সাধারণ সভা শেষে জেলা বিএনপির উপদেষ্টা মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আলম গিয়াসকে সকলের সামনে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করা হয়েছে। যা তদন্তে সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয়েছে। বিষয়টি সম্পূর্ণভাবে দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থি কর্মকাণ্ড। সে ক্ষেত্রে কেন আপনার (সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম নুপুর) বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না, তার কারণ দর্শিয়ে আগামী ১০ দিনের মধ্যে একটি লিখিত প্রতিবেদন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বরাবরে নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে প্রেরণ করার জন্য নির্দেশ প্রদান করা হলো।

এরই প্রেক্ষিতে মনিরুল ইসলাম নুপুর কারণ দর্শানো নোটিশের জবাব প্রদান করেন। জবাব হাতে পেয়ে তদন্ত কমিটির সুপারিশে কেন্দ্রীয় বিএনপি মনিরুল ইসলাম নুপুরের সাধারণ সম্পাদক পদ স্থগিত ঘোষণা করেন। 

এ ব্যাপারে মনিরুল ইসলাম নুপুর বলেন, গিয়াস ভাই আমার বড় ভাইয়ের মতো। তাঁর সঙ্গে সামান্য কথার কাটাকাটি হয়েছে। এ নিয়ে একটি পক্ষ ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। আমার নামে কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছে। আমি দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে ঝালকাঠি জেলা বিএনপি সুসংগঠিত রয়েছে। যারা খালেদা জিয়ার মুক্তি, তারেক রহমানের মামলা প্রত্যাহারসহ দলের কোনো কর্মসূচিতে আসে না, বসন্তের কোকিল; তারাই সুযোগ পেলে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে। আশা করি কেন্দ্রীয় বিএনপির নেতৃবৃন্দ বিষয়টি বুঝতে পেরে আদেশ তুলে নেবেন। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা