kalerkantho

সোমবার । ২২ জুলাই ২০১৯। ৭ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৮ জিলকদ ১৪৪০

ভিজিডির চাল আত্মসাৎ করায় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা

ফুলবাড়িয়া (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

১৮ জুন, ২০১৯ ২১:২৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভিজিডির চাল আত্মসাৎ করায় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা

ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার বালিয়ান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আশরাফুজ্জামানের বিরুদ্ধে ভিজিডির কার্ডধারী দুঃস্থ মহিলার চাল আত্মসাৎ করার অভিযোগে আদালতে মামলা করেছেন বিলকিছ আক্তার নামে এক নারী।

আজ মঙ্গলবার ময়মনসিংহ বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ২ নং আমলী আদালতে মামলা দায়ের করেন তিনি। সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. হাফিজ আল আসআদ মামলাটি আমলে নিয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলেছেন।

ভিজিডি কাডধারী বিলকিছ আক্তার বালিয়ান ইউনিয়নের বালশ্বর গ্রামের মো. মানিক মিয়ার স্ত্রী। কার্ড নং-৬৫। তিনি মামলায় উল্লেখ করেছেন, চলতি বছরের জানুয়ারি হতে এপ্রিল মাস পর্যন্ত ৪ বার ভিজিডি কার্ডধারী দুঃস্থদের মাঝে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ৩০ কেজি (প্রতি মাসে) করে চাল দেওয়া হলেও বিলকিছ আক্তার নামে বরাদ্দকৃত ভিজিডির চাল চেয়ারম্যান আশরাফুজ্জামান সরকার উত্তোলন করে তা আত্মসাৎ করেছেন।

বিলকিছ আক্তার বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান আমার ভিজিডি কার্ড নিয়ে নেন। পরবর্তীতে ইউএনও (উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা) বরাবর আবেদন করে চলতি মাসে ভিজিডি কার্ডটি ফেরত পেয়েছি। আমার নামে বরাদ্দকৃত চার মাস যাবত ভিজিডির চাল চেয়ারম্যান আত্মসাৎ করায় তার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছি।

বাদীর আইনজীবী ড. আব্দুল্লাহ হেল বাকি বলেন, বাদী বিলকিছ আক্তারের করা মামলাটি আমলে নিয়ে ফুলবাড়িয়া উপজেলা কৃষি কর্মাকর্তাকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলেছেন বিজ্ঞ আদালতের বিচারক।

ইউপি চেয়ারম্যান আশরাফুজ্জামান সরকার বলেন, বিলকিছ আক্তারের ৬৫ নং কার্ডটি মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কাছে ছিল। সেখান থেকে তাকে নিতে বলা হয়েছিল। কিন্তু তিনি কার্ডটি নেননি। তার নামে বরাদ্দকৃত চাউল ইউপি কার্যালয়ে রয়েছে।

উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা রেহেনা আক্তার খাতুন বলেন, বালিয়ান ইউনিয়নের ভিজিডির ৬৫ নং কার্ডটি আমার কাছে জমা ছিল। সোমবার বিলকিছ আক্তার নামের কার্ডটি তার শ্বশুর স্বাক্ষর করে নিয়ে গেছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা