kalerkantho

বুধবার । ১৭ জুলাই ২০১৯। ২ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৩ জিলকদ ১৪৪০

ফরিদগঞ্জে পুলিশের ভুলে নিরীহ নারীর ২৪ ঘণ্টা কারাবাস

চাঁদপুর প্রতিনিধি   

১৫ জুন, ২০১৯ ২৩:৪৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ফরিদগঞ্জে পুলিশের ভুলে নিরীহ নারীর ২৪ ঘণ্টা কারাবাস

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে পুলিশের ভুলের কারণে নিরীহ এক নারী ২৪ ঘণ্টা কারাবাস করেছেন। শুধু নামের ভুলের কারণে এই ঘটনা ঘটেছে। এতে দায়ী পুলিশ কর্মকর্তা সহকারী উপপরিদর্শক মাজেদকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগর থানায় বিগত ২০০০ সালে প্রতারণার একটি মামলায় এক বছরের কারাদণ্ড ও ৫ হাজার জরিমানা অনাদায়ে তিন মাসের কারাদণ্ডপ্রাপ্ত হন চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার রূপসা দক্ষিণ ইউনিয়নের সাহেবগঞ্জ গ্রামের জয়নাল আবেদীনের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম (৫৫)। 

দীর্ঘদিন পর এই মামলার গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ফরিদগঞ্জ থানায় আসলে সহকারী উপপরিদর্শক মাজেদ একই ইউনিয়নের চরমুঘুয়া গ্রামের আরেক জয়নাল আবেদীনের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম (৪০)কে গত বৃহস্পতিবার বিকালে সাজাপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে গ্রেপ্তার করে।

কিন্তু পুলিশের হাতে আটক আনোয়ারা বেগম এই মামলার আসামি নয়। নাম ও স্বামীর নাম এক হওয়ার কারণে তাকে আটক করা হয়েছে ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আবদুর রকিবকে এমন তথ্য জানান, আটক আনোয়ারা বেগমের মামাতো ভাই একটি জাতীয় দৈনিকে কর্মরত বেলাল হোসেন।

এদিকে থানা পুলিশ বিষয়টিকে আমলে নিয়ে তদন্ত শুরু করে। এই পরিস্থিতি পরের দিন শুক্রবার আনোয়ারা বেগমকে থানা থেকে চাঁদপুর আদালতে প্রেরণ করা হয়। এ সময় আদালত জামিন না মঞ্জুর করে ওই নারীকে জেলহাজতে প্রেরণ করার নির্দেশ দেন। শুধু তাই নয়, নিরীহ এই নারীকে একরাত ফরিদগঞ্জ থানা হাজতেও বাস করতে হয়েছে।

আজ শনিবার থানা পুলিশ আটককৃত আনোয়ারা বেগম সাজাপ্রাপ্ত আসামী আনোয়ারা বেগম নয় এই মর্মে চাঁদপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট-২ কামাল হোসেনের আদালতে প্রতিবেদন উপস্থাপন করলে, আদালতে নিরাপরাধ আনোয়ারা বেগমকে দ্রুত মুক্তি দানের আদেশ প্রদান করেন। 

আনোয়ারা বেগমের মামাতো ভাই বেলাল হোসেন জানান, পুলিশ নাম ও ঠিকানা নিশ্চিত না হয়ে তার বোনকে সাজাপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে আটক করে। ফলে কোনো অপরাধ না করেও তাকে ২৪ ঘণ্টা কারা ভোগ করতে হয়েছে। 

এ ব্যাপারে আনোরারা বেগমের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইয়াছিন আরাফাত চৌধুরী জানান, শনিবার আদালত আনোয়ারা বেগম মুন্সীগঞ্জ জেলার জি আর ১৪০/২০০০ মামলার আসামি নয় বলে পুলিশের রিপোর্ট পেয়ে তাকে দ্রুত মুক্তি দানের আদেশ প্রদান করেন। 

এদিকে নামের ও স্বামীর নামের সঙ্গে মিল থাকার কারণে সাজাপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে নিরীহ নারীকে আটকের ঘটনায় শনিবার চাঁদপুর পুলিশ সুপার ফরিদগঞ্জ থানার সহকারী উপপরিদর্শক মাজেদকে প্রত্যাহার করে চাঁদপুর পুলিশ লাইনে ক্লোজড করেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবদুর রকিব জানান, সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) মাজেদকে ইতিমধ্যেই সিসি দেওয়া হয়েছে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা