kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৬ জুলাই ২০১৯। ১ শ্রাবণ ১৪২৬। ১২ জিলকদ ১৪৪০

এসিল্যান্ডের গাড়িচালককে পেটাল টোল আদায়কারীরা

বাবুগঞ্জ (বরিশাল) প্রতিনিধি   

১৫ জুন, ২০১৯ ১৯:২২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এসিল্যান্ডের গাড়িচালককে পেটাল টোল আদায়কারীরা

বরিশালের বাবুগঞ্জ-মীরগঞ্জ খেয়াঘাটের টোল আদায়কারীদের হাতে মুলাদী উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) লিটন ঢালীর গাড়িচালক মো. শামিমকে মারধর করায় থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। এ ঘটনায় চালক শামিম শুক্রবার রাতে বাদী হয়ে বাবুগঞ্জ থানায় তিনজনের নাম উল্লেখ করে এবং আরো চারজনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। 

মামলার নথি সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার দুপুর দেড়টার দিকে মুলাদী উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) লিটন ঢালীর গাড়িচালক মো. শামিম সরকারি জিপ গাড়ি নিয়ে বরিশালে যাওয়ার পথে মীরগঞ্জ ফেরিতে ওঠেন। ফেরি ছাড়তে বিলম্ব হওয়ার কারণে সে গাড়ি ফেরিতে রেখে চা পানের উদ্দেশ্যে খেয়াঘাটের দোকানে যান। চা পান শেষে ফেরিতে ফিরে আসার সময় টোল উত্তোলনকারীরা গাড়িচালক শামিমের কাছে খেয়া পারাপারের ভাড়া দাবি করে। এ সময় শামিম নিজেকে এসিল্যান্ডের চালক পরিচয় দিলেও জেলা পরিষদের নিয়োজিত টোল আদায়কারী লোকজনের রোষানলে পড়েন চালক শামিম। একপর্যায়ে ভাড়া চাওয়াকে কেন্দ্র করে শামিমের ওপর অতর্কিত হামলা করে টোল আদায়কারীরা। এতে গুরুতর আহত হন চালক শামিম। এ ঘটনা মুলাদী থানা পুলিশকে অবহিত করলে পুলিশ এসে শামিমকে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। 

পরে ঘটনাস্থল বাবুগঞ্জ থানা এলাকায় হওয়ায় হামলার স্বীকার শামিম আহম্মেদ বাদী হয়ে হামলাকারীদের নামে বাবুগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করলে থানা পুলিশ তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো মো. নাসির (৩০), মো. আব্বাস (৪২), মো. অনিসুর রহমান (৩৫)। শনিবার সকালে আসামিদের জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। 

এ বিষয় জানতে চাইলে মুলাদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জিয়াউল হাসান বলেন, মুলাদী উপজেলার এসিলান্ডের চালককে মারধরের ঘটনায় তিনজনকে আটক করা হয়েছে। যেহেতু ঘটনাস্থল বাবুগঞ্জ উপজেলাধীন সে কারণে আসামিদেরকে বাবুগঞ্জ থানায় সোপর্দ করা হয়েছে বলে জানান তিনি। 

বাবুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দিবাকর চন্দ্র দাস কালের কণ্ঠকে জানান, মুলাদী উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) লিটন ঢালীর গাড়িচালককে মারধরের ঘটনায় মামলা দায়ের পরবর্তী তিনজন আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকিদের আটক করে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ কার হবে। 

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি (১ লা জুন) মীরগঞ্জ খেয়াঘাটে জেলা পরিষদ খাস কালেকশন নামে বহিরাগতদের নিয়োজিত করে যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের সত্যতা পেয়ে বাবুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুজিত হাওলাদার জেলা পরিষদের এক কর্মচারী ও সড়ক ও জনপদ (সওজ) বিভাগের একজন ইজারাদারসহ দুজনকে ১৫ দিনের কারাদণ্ড দেওয়ার পরও থেমে নেই ওই চক্রটি। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা