kalerkantho

রবিবার। ১৬ জুন ২০১৯। ২ আষাঢ় ১৪২৬। ১২ শাওয়াল ১৪৪০

দুই মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে প্রাণ গেল প্রকৌশলীর

জামালপুর প্রতিনিধি   

২৬ মে, ২০১৯ ২২:২৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দুই মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে প্রাণ গেল প্রকৌশলীর

জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলায় দুই মোটরসাইকেলের মুখোমুখী সংঘর্ষে এলজিইডির ইসলামপুর উপজেলার উপ সহকারী প্রকৌশলী মো. হারুন অর রশিদ (৬০) নিহত হয়েছেন। আজ রবিবার সন্ধ্যায় জামালপুর-ইসলামপুর সড়কের মেলান্দহের বুরুঙ্গা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, এলজিইডির উপসহকারী প্রকৌশলী মো. হারুন অর রশিদ রবিবার সন্ধ্যায় তার কর্মস্থল থেকে মোটরসাইকেলে জামালপুর শহরে নয়াপাড়ার বাসায় ফিরছিলেন। পথে জামালপুর-ইসলামপুর সড়কের মেলান্দহের বুরুঙ্গা এলাকায় তিন যাত্রী বহনকারী দ্রুতগামী একটি মোটরসাইকেলের সাথে সংঘর্ষে হারুন অর রশিদ গুরুতর আহত হন। সংঘর্ষে অন্য মোটরসাইকেলের যাত্রী তিন যুবকও গুরুতর আহত হন। স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে জামালপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আল্লামা ইকবাল আহতদের মধ্যে হারুন অর রশিদকে মৃত ঘোষণা করেন।

গুরুতর আহত তিন যুবক হলেন জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার তারাকান্দি গ্রামের আব্দুল বারীর ছেলে আব্দুল্লাহ, জামাল উদ্দিনের ছেলে সৌরভ এবং মো. মঞ্জুর ছেলে হৃদয়।

এদিকে একজন প্রকৌশলীর মৃত্যুর কথা শুনে জামালপুর এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মো. নজরুল ইসলাম ও অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীরা হাসপাতালে ছুটে যান। তারা কর্তৃপক্ষের অনুমতিক্রমে ময়নাতদন্ত ছাড়াই নিহতের স্বজনদের কাছে লাশ হস্তান্তর করেন। নিহত উপসহকারী প্রকৌশলী হারুন অর রশিদ গত ফেব্রুয়ারি মাসে চাকরি থেকে অবসরকালীন ছুটিতে থাকলেও নিয়মিত অফিসে যেতেন। তিনি জেলার মাদারগঞ্জ উপজেলার পাটাদহ গ্রামের মোফাজ্জল হোসেনের ছেলে। তার মৃত্যুতে পরিবারে শোকের ছায়া নেমে আসে।

মেলান্দহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রেজাউল ইসলাম খান কালের কণ্ঠকে নিশ্চিত করে বলেন, দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে মোটরসাইকেল দুটি জব্দ করা হয়েছে। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে এখনো কেউ থানায় অভিযোগ নিয়ে আসেননি। অভিযোগ পেলে মামলা দায়ের করা হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা