kalerkantho

রবিবার। ১৬ জুন ২০১৯। ২ আষাঢ় ১৪২৬। ১২ শাওয়াল ১৪৪০

বসতবাড়ির রাস্তা আটকে দোকান নির্মাণ

ইন্দুরকানী (পিরোজপুর) প্রতিনিধি   

২৬ মে, ২০১৯ ১৫:৫৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বসতবাড়ির রাস্তা আটকে দোকান নির্মাণ

পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে বসতবাড়ির রাস্তার পথ আটকে অবৈধভাবে দোকান নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। উপজেলার পত্তাশী ইউনিয়নের খেজুরতলা বাজারে এ ঘটনা ঘটে। বাড়ির রাস্তার পথ আটকে দোকানঘর নির্মাণ করায় চলাচলে ভোগান্তিতে পড়েছেন বাড়ির লোকজন। এ ঘটনায় দুই পক্ষের মধ্যে বিরাজ করছে উত্তেজনা। 

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার খেজুরতলা বাজারে সুগার মিল এর চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী বাদশা খানের বসতবাড়ির চলার পথ আটকে স্থানীয় বাসিন্দা ছালেক হাওলাদার গত ১৫ মে দোকানঘর নির্মাণ করেন। এ নিয়ে বাদশা খান স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের কাছে নালিশ দিলে বসতবাড়ির চলার পথ থেকে দোকানঘর সরাতে ছালেক হাওলাদারকে একাধিকবার চাপ দিলেও কোনো কাজ হয়নি। 

এদিকে খেজুরতলা বাজারের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বিপরীত পার্শ্বের যে জায়গায় ছালেক হাওলাদার দোকানঘর নির্মাণ করেছেন সেটি তার নিজস্ব কোনো সম্পত্তি নয়। ওই জায়গা স্কুলের নামে দান করা। আর ওই দোকানঘরের পেছনে বাদশা খান তার সম্পত্তির ওপর নতুন বসতঘর তুলছেন। ছালেক হাওলাদার কাউকে কিছু না বলে এমনকি স্কুল কর্তৃপক্ষের কোনো অনুমতি না নিয়ে ওই জায়গায় বাদশা খানের বাড়ি থেকে বাজারের রাস্তায় ওঠার পথ বন্ধ করে চায়ের দোকান করেছেন। 

দেলোয়ার মাস্টার, আবদুর রশিদ হাওলাদার, মোখলেচুর রহমান, পান্নু মাস্টার, খাওয়ালা খানম বেবি, শিক্ষক শাহজাহান খানসহ স্থানীয় অনেক বাসিন্দা এবং বাজারের ব্যবসায়ীরা বাদশা খানের বাড়ির পথ আটকে দোকানঘর নির্মাণ করায় সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ জানান। 

এ ব্যাপারে অভিযোগকারী বাদশা খান জানান, আমার বসতবাড়ির রাস্তা আটকে গায়ের জোরে স্থানীয় ছালেক হাওলাদার দোকানঘর নির্মাণ করেছে। আর যে জমির ওপর তিনি দোকানঘর নির্মাণ করেছেন তার বৈধ মালিক তিনি নন। বিষয়টি আমি স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানিয়েছি। এ ব্যাপারে প্রতিকার না পেলে আমি আইনের আশ্রায় নেব। 

অভিযুক্ত ছালেক হাওলাদারের পিতা ফজলুল হক হাওলাদার জানান, বাজারের রাস্তার পাশে আমার ছেলে যে দোকানঘর নির্মাণ করেছে তা স্কুলের সম্পত্তি। স্কুল কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে ওখানে দোকানঘর নির্মাণ করা হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

উপজেলা আওয়মী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ও স্থানীয় বাসিন্দা বজলুর রহমান মিন্টু বলেন, বাদশা খানের বসতবাড়ির রাস্তা আটকে ছালেক দোকানঘর নির্মাণ করেছেন এটা সত্য। বাড়ির চলার পথ থেকে দোকানঘর সরিয়ে অন্যত্র দেওয়ার জন্য উভয় পক্ষকে নিয়ে সমঝোতায় বসব।

২৯ নম্বর খেজুরতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সহিদুল ইসলাম জানান, রমজান উপলক্ষে স্কুল বন্ধ রয়েছে। এই সুযোগে কারো কোনো অনুমতি না নিয়ে ছালেক নামে স্থানীয় এক ব্যক্তি স্কুলের জমিতে দোকানঘর নির্মাণ করেছেন বলে শুনেছি। আর ওই দোকানের পেছনে বাদশা খানের বসতঘর রয়েছে বলে তিনি জানান। 

 

 

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা