kalerkantho

বুধবার । ২৬ জুন ২০১৯। ১২ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

পুলিশের কাছ থেকে আসামি ছিনতাই, গ্রেপ্তার ১১

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি   

২৫ মে, ২০১৯ ২২:১০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পুলিশের কাছ থেকে আসামি ছিনতাই, গ্রেপ্তার ১১

লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে পুলিশের ওপর হামলা চালিয়ে মাদক মামলায় সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গদাধর দাসকে ছিনিয়ে নেয় দুর্বৃত্তরা। গতকাল শুক্রবার রাতে উপজেলার চরডাক্তার আশ্রম বাজারে ছিনিয়ে নেওয়ার এ ঘটনা ঘটে। আর এ ঘটনায় মামলা হলে মোট ১১ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। 

রামগতি থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মঈন উদ্দিন বাদী হয়ে শনিবার (২৫ মে) দুপুরে এ মামলা দায়ের করেন। এতে সাজাপ্রাপ্ত আসামি গদাধর দাসসহ ২২ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরও ১০ থেকে ১২ জনকে আসামি করা হয়।

ঘটনার পর থেকে শনিবার দুপুর পর্যন্ত হামলা ও আসামি ছিনতাইয়ের ঘটনায় পুলিশ ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। তাদেরকে জেলা আদালতে পাঠানো হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন আশ্রম বাজার এলাকার সুব্রত চন্দ্র দাস, রিংকন চন্দ্র দাস, রুপন চন্দ্র দাস, মরন চন্দ্র দাস, রকি চন্দ্র দাস, রঞ্জিন চন্দ্র দাস, অমল চন্দ্র দাস, দীপক চন্দ্র দাস, অনিল চন্দ্র মজুমদার ও সংগীত চন্দ্র দাস।

অন্যদিকে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ছিনিয়ে নেওয়া আসামি গদাধর দাসকে সন্ধ্যায় কমলনগর উপজেলার করুনানগর এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছে। গদাধর রামগতি পৌরসভার চর ডাক্তার আশ্রম বাজার এলাকার কর্নধর দাসের ছেলে।

ছিনতাইয়ের সময় হামলায় আহত হয়েছেন পুলিশের এএসআই মঈন উদ্দিন, কনস্টেবল আশরাফুল আলম ও ফোরকান। তারা রামগতি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়েছেন।

এএসআই মো. মঈন উদ্দিন জানান, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে রাত সাড়ে আটটার দিকে ছয়জনের দল নিয়ে চরডাক্তার আশ্রম বাজারে চা দোকান থেকে মাদক মামলায় সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গদাধর দাসকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করেন। ওই সময় গদাধরের চিৎকারে তার কয়েকজন সহযোগী এগিয়ে এসে কর্তব্যরত পুলিশের ওপর হামলা চালিয়ে গদাধরকে ছিনিয়ে নেন। খবর পেয়ে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তাদের উদ্ধার করেন।

জানতে চাইলে রামগতি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এটিএম আরিচুল হক জানান, পুলিশের কাজে বাধা, হামলা ও আসামি ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। ছিনিয়ে নেওয়া আসামিসহ সন্ধ্যা পর্যন্ত ১১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। যে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ সতর্ক রয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা