kalerkantho

শুক্রবার । ২১ জুন ২০১৯। ৭ আষাঢ় ১৪২৬। ১৮ শাওয়াল ১৪৪০

প্রতারণার অভিযোগে স্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রথম স্বামীর সংবাদ সম্মেলন

গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

২৫ মে, ২০১৯ ২২:০১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রতারণার অভিযোগে স্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রথম স্বামীর সংবাদ সম্মেলন

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে আবু আল আমিন রনি (৩৫) নামে এক যুবক তার স্কুলশিক্ষিকা স্ত্রীর (২৮) বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলনে প্রতারণার অভিযোগ করেছেন। আজ শনিবার বেলা ১১টায় স্থানীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি এ অভিযোগ করেন। এ সময় অভিযোগকারী আবু আল আমিন রনির সঙ্গে তার বাবা নূরুল আমিন ও স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন।

লিখিত বক্তব্য সূত্রে জানা যায়, পৌর শহরের শিলাসী ৮নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা নূরুল আমিনের ছেলে আবু আল আমিন রনির সাথে উপজেলার দত্তের বাজার ইউনিয়নের বিরই (খাল পাড়া) গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলামের মেয়ে রেজবীন নাহার জুলিয়ার প্রেম সম্পর্কের সুবাদে ২০১৩ সালে বিয়ে হয়। বিষয়টি জানাজানি হলে রনির পরিবার বিয়ে মেনে নিলেও জুলিয়ার পরিবার মেনে নেয়নি। পরে রনি ও জুলিয়ার মধ্যে যোগাযোগ থাকা সত্ত্বেও জুলিয়ার পরিবার তাকে স্বামীর বাড়ি আসতে দেয়নি। এ অবস্থায় জুলিয়ার পরিবার প্রথম স্বামী রনির কাছ থেকে ডিভোর্স না নিয়েই পুনরায় মেয়ের বিয়ের উদ্যোগ নেন।

২০১৬ সালের ৮ জুলাই উপজেলার উস্থি ইউনিয়নের নয়াবাড়ি গ্রামের নূরুল ইসলামের ছেলে জহিরুল ইসলামের সাথে জুলিয়ার কাবিন রেজি. মূলে দ্বিতীয় বিয়ে হয়। বর্তমানে কাবিন রেজি. অনুযায়ী জুলিয়ার দুই স্বামী। ২০১৮ সালে জুলিয়ার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষকের চাকরি হয় এবং তিনি বর্তমানে লামকাইন মধ্যপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কর্মরত আছেন। দ্বিতীয় বিয়ের পরও প্রথম স্বামী রনি জুলিয়াকে স্ত্রী দাবি করে তার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করায় জুলিয়ার বাবা চলতি মাসের ৩ তারিখ (৩মে) পাগলা থানায় রনির বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে অপহরণ মামলা দায়ের করেন।

এ অবস্থায় আজ শনিবার স্থানীয় প্রেস ক্লাবে জুলিয়ার প্রথম স্বামী রনি নিকাহনামার (কাবিন রেজি.) ফটোকপি স্থানীয় সাংবাদিকদের সামনে প্রদর্শন করে তার বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে স্ত্রীকে ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানান।

আবু আল আমিন রনি দাবি করেন, জুলিয়ার সাথে প্রেমের সম্পর্কের সূত্রে তারা কাবিন রেজি.মূলে বিয়ে করেছেন এবং এখনো তারা বৈধ স্বামী-স্ত্রী। জুলিয়ার পরিবার আইন ভঙ্গ করে (ডিভোর্স না নিয়ে) তার স্ত্রীকে অন্যত্র দ্বিতীয় বিয়ে দিয়েছেন।

শিক্ষিকা রেজবীন নাহার জুলিয়ার মোবাইল নম্বরটি বন্ধ থাকায় এ ব্যাপারে তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। তবে জুলিয়ার বাবা মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম মোবাইলে দাবি করে বলেন, রনি যে কাবিননামা প্রদর্শন করেছে তা মিথ্যা ও ভুয়া। পূর্বে আমার মেয়ের কোনো বিয়ে হয়নি। আমার মান-সম্মান নষ্ট করার জন্য পরিকল্পিতভাবে সংবাদ সম্মেলন করেছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন রনি ও রেজবীন নাহার জুলিয়ার প্রথম বিয়ের কাজী নূরুজ্জামান বুলবুল বলেন, আমার অফিসের পাশের একটি বাসায় আবু আল আমিন রনি ও রেজবীন নাহার জুলিয়া উপস্থিত হয়ে সাক্ষীদের সামনে স্বজ্ঞানে কাবিননামায় স্বাক্ষর করেছেন। বিয়ে রেজি. খাতায় সাক্ষীসহ বর-কনে দুইজনের স্বাক্ষর রয়েছে।

পাগলা থানার অফিসার ইনচার্জ (চলতি দায়িত্ব) ফয়েজুর রহমান বলেন, রনি যদি বিয়ে করে থাকে তা হলে গোপন থাকলো কেন? তার বিরুদ্ধে অপহরণ মামলা করার পরও আমাদের কাছে বিয়ের কাগজপত্র দাখিল করেনি। 

মন্তব্য