kalerkantho

সোমবার। ১৭ জুন ২০১৯। ৩ আষাঢ় ১৪২৬। ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ: ব্যাংক কর্মকর্তা-শিক্ষকসহ প্রশ্ন ফাঁসচক্রের ২৯ সদস্য আটক

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি   

২৪ মে, ২০১৯ ১২:৪২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ: ব্যাংক কর্মকর্তা-শিক্ষকসহ প্রশ্ন ফাঁসচক্রের ২৯ সদস্য আটক

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের ২৯ সদস্যকে আটক করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) সদস্যরা। আজ শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে কলারোয়া থানার সামনে সোনালী সুপার মার্কেটের 'কিডস ক্লাব' নামক কোচিং সেন্টার থেকে তাদেরকে আটক করা হয়।

আটকৃতরা জানায়, গত বৃহস্পতিবার রাতে প্রাথমিক স্কুল শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীরা জড়ো হন কলারোয়া উপজেলা সদরের সোনালী সুপার মার্কেট ভবনের কীডস ক্লাব সেন্টারে। তারা সেখানে রাত্রিযাপন করেন। 

রাতভর ও সকালে মোবাইল ফোনে তাদের কাছে আসা প্রশ্নপত্র ব্ল্যাকবোর্ডে লিখে সাথে সাথে তার উত্তরও দেয়া হতে থাকে। উপস্থিত পরীক্ষার্থীরা তা শিখে নিতে থাকেন। 

আটককৃতদের মধ্যে কয়েকজন ব্যাংক কর্মকর্তা, শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরিক্ষার্থী আছেন। 

আটককৃতরা হলেন- প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের হোতা কিডস ক্লাব কোচিং সেন্টারের পরিচালক এবং জনতা ব্যাংক সেনেরগাতি (পাটকেলঘাটা) শাখার ম্যানেজার আফতাব আহম্মেদ, সোনালী ব্যাংক কলারোয়া শাখার অফিসার সোহাগ হোসেন, কৃষি ব্যাংক কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম, রামকৃষ্ণপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আমিরুল ইসলাম, ঢাকা থেকে আগত প্রশ্নপত্র ফাঁসচক্রের সদস্য আব্দুল হালিম এবং তরিকুল ইসলাম। 

র‍্যাব জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায়, ঢাকায় বসে একটি প্রশ্ন ফাঁসকারী চক্র ১২ লাখ টাকার চুক্তিতে তাদের কাছে মোবাইল ফোনে প্রশ্ন ও তার উত্তর বলে দেবে। এসব প্রশ্ন ও উত্তর ব্ল্যাকবোর্ডে লিখে পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়া হবে। এজন্য সিন্ডিকেটের হাতে অগ্রিম পাঁচ লাখ টাকা দিতে হয়েছে। বাকি টাকা পরীক্ষা শেষে দেওয়ার কথা রয়েছে। 

অভিযান পরিচালনাকারী র‍্যাব-৬ সাতক্ষীরার কমান্ডার লেফটেন্যান্ট মাহমুদুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কলারোয়া পৌর সদরের একটি কোচিং সেন্টার থেকে ব্যাংক কর্মকর্তা, শিক্ষক, পরিক্ষার্থীসহ প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের প্রথমে ২২ ও পরে ৭ জনসহ মোট ২৯ জনকে আটক করা হয়। 
ঘটনাস্থল থেকে কয়েকজন পালিয়ে যান। তাদেরকে আটকের চেষ্টা চলছে। পরে প্রেস ব্রিফিং করে সব জানানো হবে। আটককৃতদের বিরুদ্ধে আইনগত প্রক্রিয়া চলছে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা