kalerkantho

বুধবার। ১৯ জুন ২০১৯। ৫ আষাঢ় ১৪২৬। ১৫ শাওয়াল ১৪৪০

জামায়াতের ডেরায় চরম অস্থিরতা

কক্সবাজারে সংস্কারপন্থীদের বৈঠক আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার    

২২ মে, ২০১৯ ০০:১৮ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



কক্সবাজারে সংস্কারপন্থীদের বৈঠক আজ

জন আকাংখার বাংলাদেশ কক্সবাজার জেলা জামায়াত ইসলামীর শক্ত ভিত নাড়িয়ে দিয়েছে। বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর বহুল আলোচিত সংস্কারপন্থী গ্রুপ ‘জন আকাংখার বাংলাদেশ’ এখন সাগর পাড়ের শহর কক্সবাজারকে টার্গেট করে এক বৈঠকের আয়োজন করেছে। এই বৈঠকেই সংগঠনটি কক্সবাজারে একটি নতুন কমিটির মাধ্যমে সাংগঠনিক তৎপরতা শুরু করতে যাচ্ছে বলে জানা গেছে। বৈঠকে যোগ দিতে রাজধানী ঢাকা থেকে আজ কক্সবাজার উড়ে আসছেন সদ্য ঘোষিত ‘জন আকাংখার বাংলাদেশ’ নামের সংগঠনের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক মুজিবুর রহমান মঞ্জু, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি রেজাউল করিম ও মানবতাবিরোধী অপরাধে দণ্ডিতদের পক্ষে যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল মামলার আইনজীবী বহুল আলোচিত আইনজীবী অ্যাড. তাজুল ইসলাম।

এ বৈঠককে কেন্দ্র করে কক্সবাজারের জামায়াত-শিবিরের ডেরায় এক ধরনের অস্থিরতা বিরাজ করছে। গত তিনদিন ধরে জেলা জামায়াতের শীর্ষ নেতারা পরিস্থিতি সামাল দিতে ম্যান টু ম্যান কন্ট্র্রাক্ট সেরে নিচ্ছেন। জামায়াতের রুকন পর্যায়ের কোনো নেতা যাতে সংস্কারপন্থীদের আজকের বৈঠকে যোগ দিতে না পারে সে জন্য আগাম কঠিন সাংগঠনিক ব্যবস্থার হুঁশিয়ারি দিয়ে রেখেছে কক্সবাজার জেলা জামায়াতে ইসলামীর নীতি-নির্ধারকরা। তবুও সংস্কারপন্থীদের আটকানো যাচ্ছে না বলে জানান জামায়াতের মাঠ পর্যায়ের এক নেতা। দীর্ঘদিন ধরে কক্সবাজারের রাজনৈতিক মাঠে প্রভাবশালী দলটিতে মূলত কি হতে যাচ্ছে এরকমই নিরব আলোচনা চলছে।

জানা গেছে, সংস্কারপন্থী গ্রুপটি আজ বুধবার কক্সবাজারে একটি গুরুত্বপূর্ণ সভা অনুষ্ঠান করতে যাচ্ছে। সভার যাবতীয় কার্যক্রম অত্যন্ত গোপনে সম্পন্ন করার চেষ্টা করা হচ্ছে। কক্সবাজারের জামায়াত-শিবির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত একটি বড় গ্রুপ সংস্কারপন্থীদের সঙ্গে যোগ দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। কক্সবাজারে সংস্কারপন্থীদের যাত্রার নেপথ্য আয়োজন করছে কক্সবাজার ও চট্টগ্রামে এক কালের শিবিরের দুর্ধর্ষ নেতা-কর্মী হিসাবে পরিচিত বেশ ক’জন।

দেশের কয়েকটি স্থানের মধ্যে এক সময় কক্সবাজারেও ছিল জামায়াত-শিবিরের দাপুটে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড। সেই জামায়াত-শিবিরের নানা বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের জেলা কক্সবাজারে সংগঠনটির সংস্কারপন্থীদের যাত্রা শুরু হবার কথায় প্রথমে জামায়াত-শিবিরের প্রবল বিরোধীতার কথা শুনা গেলেও গতরাতে এ প্রতিবেদন লেখাকালীন সময় পর্যন্ত তেমন কোনো আশংকার তথ্য মিলেনি।

এ প্রসঙ্গে জামায়াত-শিবিরের স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মূলত সংগঠনের পক্ষ হয়ে যারাই কিনা এসব তর্কবিতর্কের ঘটনায় লিপ্ত থাকেন তারাই নতুন সংগঠনের পক্ষে কাজ করছেন। তাই এমন কোনো বাধা দেওয়ার ঘটনার আশংকা করা হচ্ছে না।

খোঁজ-খবর নিয়ে জানা গেছে, জামায়াতের নতুন সংস্কারপন্থী গ্রুপটি অত্যন্ত গোপনেই কক্সবাজারে আজ বুধবারের সমাবেশটি করতে যাচ্ছে। আজকের কক্সবাজারের বৈঠকটির বিষয় এমন গোপনীয় রাখা হয়েছে যে, স্থানীয় গোয়েন্দা কর্মীদের কাছেও এ সংক্রান্ত কোনো তথ্য মিলেনি। তবে বৈঠকের বিষয়ে কক্সবাজার জেলা পুলিশের একজন কর্মকর্তা গতরাতে দৈনিক কালের কণ্ঠকে নিশ্চিত করেছেন। সমাবেশটি আয়োজনের জন্য স্থানীয় জামায়াত-শিবিরের বেশ ক’জন সাবেক নেতা-কর্মী গোপনে কাজ করে যাচ্ছিলেন। কক্সবাজার সাগর পাড়ের বিলাস বহুল হোটেল ওশ্যান প্যারাডাইজের হল রুমে আয়োজন করা হয়েছে এ বৈঠকটি। আজ বিকাল ৩টায় বৈঠক শুরু হবার কথা রয়েছে। যা ইফতার আয়োজনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে।

এদিকে গতরাতে কক্সবাজার সাগর পাড়ের একটি হোটেলে আজকের বৈঠকটির আয়োজন নিয়ে স্থানীয় জামায়াত-শিবিরের সাবেক নেতাদের এক গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে কক্সবাজারের একজন সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জামায়াতের একজন রোকন পর্যায়ের নেতা, দুজন সাবেক (বর্তমানে নিষ্ক্রিয়) জামায়াতের জেলা পর্যায়ের নেতা, কক্সবাজার সরকারি কলেজছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি-জিএসদের একটি অংশ, শিবিরের কক্সবাজার ও চট্টগ্রামে দায়িত্বপালনকারী বেশ কয়েকজন ডাক-সাইট সাবেক নেতা, একটি জাতীয় দৈনিকের কক্সবাজারে কর্মরত একজন সাংবাদিক (সাবেক শিবির নেতা), কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির বেশ ক’জন জামায়াত-শিবিরপন্থী আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন। 

বৈঠকে উপস্থিত একজন সাবেক শিবির নেতা জানান, আজকের সংস্কারপন্থী গ্রুপের বৈঠকে জামায়াত-শিবিরের নেতা-কর্মী যোগ দান করার টার্গেট করা হয়েছে। এ নিয়ে কক্সবাজার জামায়াত-শিবিরের নেতা-কর্মীদের মাঝে বিগত তিনদিন ধরে স্নায়ুবিক চরম অস্থিরতা বিরাজ করছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা