kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ মে ২০১৯। ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৫ রমজান ১৪৪০

এসআই মোস্তাফিজের মাথায় আবারও সেরা কর্মকর্তার মুকুট

শেরপুর প্রতিনিধি   

১৬ মে, ২০১৯ ১৩:৪৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এসআই মোস্তাফিজের মাথায় আবারও সেরা কর্মকর্তার মুকুট

শেরপুর সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোস্তাফিজুর রহমান আবারো ময়মনসিংহ রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ অফিসারের স্বীকৃতি লাভ করেছেন। মাদক ও অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে কৃতিত্বপূর্ণ অবদান রাখায় তিনি এপ্রিল মাসের 'শ্রেষ্ঠ মাদকদ্রব্য উদ্ধারকারী কর্মকর্তা' সম্মাননা লাভ করেন। এ নিয়ে তিনি তিনবার রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ অফিসার হওয়ার সম্মাননা লাভ করলেন। 

আজ ১৬ মে বৃহস্পতিবার দুপুরে ময়মনসিংহ রেঞ্জ ডিআইজি কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে পুরস্কারের ক্রেস্ট ও নগদ অর্থ তুলে দেন ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝি। এ সময় ময়মনসিংহ বিভাগের ৪ জেলার পুলিশ সুপারগণ উপস্থিত ছিলেন। 

এ দিন একইসাথে ময়মনসিংহ রেঞ্জে এপ্রিল ২০১৯ মাসের শ্রেষ্ঠ এসপি, শ্রেষ্ঠ সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, শ্রেষ্ঠ পুলিশ পরিদর্শক সহ ৯ জনকে পুরস্কৃত করা হয়। এসআই মোস্তাফিজ ছাড়াও এ দিন শেরপুরের আরো দুই পুলিশ কর্মকর্তা রেঞ্জ সেরার সম্মাননা লাভ করেন। তারা হলেন সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নজরুল ইসলাম রেঞ্জের সেরা পুলিশ পরিদর্শক এবং টিআই মো. জাহাঙ্গীর আলম রেঞ্জের সেরা ট্রাফিক পরিদর্শক। 

পুলিশ সুপারের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মোস্তাফিজুর রহমান এপ্রিল ২০১৯ মাসে মাদক, চোরাচালন ও অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে নেতৃত্ব দিয়ে একটি বিদেশি পিস্তল, ২ হাজার পিস ইয়াবা ও ১০ গ্রাম হেরোইন উদ্ধার করে আলোচনায় আসেন। যা তাকে বিভাগের রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ উপপরিদর্শক পুরস্কারের স্বীকৃতি পেতে সহায়তা করেছে। উপপরিদর্শক (এসআই) মোস্তাফিজ ২০১৪ সাল থেকে শেরপুর সদর থানায় কর্মরত। 

২০১৭ বছরের মার্চ মাসে এবং ২০১৮ সালের নবেম্বর মাসেও তিনি ময়মনসিংহ রেঞ্জের সেরা উপপরিদর্শকের পুরস্কার পেয়েছিলেন। 

শেরপুর সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, এসআই মোস্তাফিজ একজন চৌকস অফিসার। তার কাজের স্বীকৃতি হিসেবেই তিনি রেঞ্জের সেরা এসআই সম্মাননা পেয়েছেন। 

পুরস্কার পাওয়ার প্রতিক্রিয়ায় মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, পুরস্কার সব সময়ই সম্মানের। এটা কাজের স্বীকৃতি বহন করে। পর পর তিন বছর রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ অফিসারের পুরস্কার পাওয়ায় আমি খুবই আনন্দিত। এ পুরস্কার আমাকে ভবিষ্যতে নতুন উদ্যমে দায়িত্ব পালনে অনুপ্রেরণা যোগাবে। আমি এ জন্য রেঞ্জ ডিআইজি, জেলার পুলিশ সুপার ও অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ, সদর থানার ওসিসহ সহকর্মী অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তা ও কনস্টেবলদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। তাদের সহযোগিতা আমাকে এ সম্মাননা পেতে সহায়তা করেছে। 

মন্তব্য