kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

এ এক অভিনব প্রতারণা!

ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি   

১৬ মে, ২০১৯ ১১:৪০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এ এক অভিনব প্রতারণা!

সাভারের ঘোষবাগ এলাকায় ভাড়া দেওয়ার জন্য নিজস্ব জমিতে কয়েকটি রুম করেছেন ধামরাইয়ের ব্যবসায়ী পৌরসভার কালিয়াগাড় মহল্লার আবদুল মান্নান। ওই বাসার পাশেই মান্নানের শ্বশুড় বাড়ি। শ্বশুর জীবিত না থাকার কারণে তার বাসা দেখাশোনা করেন শাশুড়ি সুফিয়া বেগম (৬৫)। অনেকগুলো রুমের মধ্যে দুটি রুমে ভাড়াটিয়া নেই। আর তাই 'রুম ভাড়া দেয়া হবে' সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দেওয়া হয়েছে বাসার বাইরের দেয়ালে। এ সুযোগই কাজে লাগিয়েছে প্রতারকচক্র। 

আবদুল মান্নান জানান, বৃহস্পতিবার সকালে ঘোষবাগের বাসায় গিয়ে এক মধ্যবয়সী লোক তার শাশুড়ি সুফিয়া বেগমের কাছে যায় রুম ভাড়া নিতে। রুম দেখে পছন্দও করে আগত ব্যক্তি। রুম ভাড়া ঠিকঠাক করে অগ্রিম বাবদ সুফিয়া বেগমের হাতে ১ হাজার টাকার একটি নোট ধরিয়ে দেন ওই ব্যক্তি। আলাপচারিতার কয়েক মিনিট পরই ওই ব্যক্তি সুফিয়ার কাছে পাঁচ শ টাকা ফেরত চান এবং পাঁচ শ টাকা অগ্রিম হিসেবে রাখতে চান। সরল বিশ্বাসে ঘর থেকে পাঁচ শ টাকার নোট এনে দেন সুফিয়া। 

এরপর ওই ব্যক্তি বাসা থেকে চলে যান। চলে যাওয়ার ১০-১২ মিনিট পরেই আবার ওই ব্যক্তি ওই বাসায় ফেরত আসেন। এসে সুফিয়াকে বলেন, চাচি আমার স্ত্রী ফোন করেছিল সে অফিসে আছে। অফিস থেকে এসে সে নিজেই রুম দেখে অগ্রিম দিয়ে যাবে এখন ওই পাঁচ শ টাকাও ফেরত দেন। সরল বিশ্বাসে ঘর থেকে পাঁচ শ টাকা এনে ফেরত দেন। তবে তিনি তাৎক্ষণিক আগত ব্যক্তির প্রতারণার বিষয়টি বুঝতে পারেননি। পরবর্তীতে জানা গেল এক হাজার টাকার নোটটি জাল। এভাবেই চলছে জাল টাকা চালিয়ে দেওয়ার কৌশল। 

এ বিষয়ে ধামরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দীপক চন্দ্র সাহা বলেন, ঘটনাটি সাভার এলাকার হলেও সকলকে সতর্ক থাকতে হবে। টাকা নেওয়ার সময় জাল কি-না দেখে নেওয়া উচিত। আর অগ্রিম নিতে হলে ভাড়াটিয়ার জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি নিতে হবে, না হলে পরবর্তীতে ওই ব্যক্তিই ভুয়া পুলিশ ব্যবহার করে আপনাকে অপরাধী বানিয়ে সর্বনাশ করতে পারে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা