kalerkantho

বুধবার । ২২ মে ২০১৯। ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৬ রমজান ১৪৪০

ডাব্লিউএফপি’র ২০ হাজার কেজি চালসহ কাভার্ডভ্যান আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার   

২৫ এপ্রিল, ২০১৯ ২৩:০৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ডাব্লিউএফপি’র ২০ হাজার কেজি চালসহ কাভার্ডভ্যান আটক

রোহিঙ্গা শিবির থেকে কোটি কোটি টাকার অবৈধ পণ্য পাচার অব্যাহত রয়েছে। এসব অবৈধ পণ্যের সাথে যাচ্ছে ইয়াবা টেবলেটের চালানও। জাতিসংঘ ও ডাব্লিউএফপিসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার ত্রাণের সাইনবোর্ড লাগিয়ে ট্রাকে এবং কাভার্ডভ্যানে করে রোহিঙ্গা শিবির থেকেই কোটি কোটি টাকার পণ্য পাচার করা হচ্ছে।

রোহিঙ্গা শিবিরের পণ্য পাচারে জড়িত রয়েছে বেশ কয়েকটি সিন্ডিকেটও। এসব সিন্ডিকেটের লোকজন অবৈধ পণ্যের সাথে সর্বশেষ পাচারে যোগ করেছে ইয়াবার চালানও। অভিযোগ উঠেছে, সিন্ডিকেট সদস্যরা আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারি বিভিন্ন সংস্থার সাথে গোপন চুক্তি করেই এতদিন ধরে একদম ফ্রি স্টাইলে পাচার করে আসছে পণ্য সামগ্রী। বিজিবি সদস্যরা বুধবার রাতে পাচারকালে এমন একটি কাভার্ডভ্যান বোঝাই ডাব্লিউএফপি’র ২০ হাজার ১৩৯ কেজি এ্যাংকর ডাল উদ্ধার করে।

অভিযোগ উঠেছে, দুই বছর আগে রোহিঙ্গা আসার পর থেকেই সিন্ডিকেট সদস্যরা রোহিঙ্গা শিবির ভিত্তিক এই অবৈধ কারবার শুরু করে। সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে তেমন কোনো কঠোর পদক্ষেপ না নেওয়ার কারণে দিন দিন সিন্ডিকেট সদস্যরা বেশী টাকার লোভে হয়ে উঠে বেপরোয়া।

রোহিঙ্গা শিবিরে বিভিন্ন সংস্থার ত্রাণ সরবরাহে নিয়োজিত ঠিকাদার এবং সরবরাহকারীরাই মূলত শিবির থেকে এসব পণ্য অবৈধভাবে পাচারে জড়িত রয়েছে। কক্সবাজার ও উখিয়া খাদ্য গুদামের সাথে দীর্ঘদিন ধরে জড়িত খাদ্য পরিবহন, ডিলার এবং ব্যবসায় জড়িত লোকজনই মূলত সিন্ডিকেট করে রোহিঙ্গা শিবির ভিত্তিক অবৈধ কারবারে জড়িয়ে পড়েছে।

কক্সবাজার খাদ্য গুদামের সাথে জড়িত সাগর সিন্ডিকেটের সদস্যরাই রোহিঙ্গা শিবির ভিত্তিক কারবারে এগিয়ে রয়েছে। রোহিঙ্গা শিবির ভিত্তিক রয়েছে বেশ কয়েকটি সিন্ডিকেট। এসবের মধ্যে আবদুর রহিম, কবির সওদাগর, শামশুল আলম সওদাগর, উজ্জল সাহাসহ আরো বেশ ক’জনের নেতৃত্বে রয়েছে আরো একাধিক সিন্ডিকেট।

সিন্ডিকেট সদস্যরা বিভিন্ন সংস্থাকে চাল, ডাল, তেল, লবণসহ যেসব পণ্য সরবরাহ দেয় সেসব পণ্যই শিবির থেকে নিয়ে পাচার করে থাকে। পরবর্তীতে সেসবই আবার একই সংস্থাগুলোকে সরবরাহ দিয়ে থাকে। সর্বশেষ রোহিঙ্গা শিবিরগুলো ‘ইয়াবার ডিপো’ হিসাবে পরিণত হওয়ায় ইয়াবা কারবারিরাই পণ্যবাহী ট্রাক এবং কাভার্ড ভ্যানগুলো দিয়ে পাচারে জড়িত হয়ে পড়েছে বলে খবর মিলেছে।

এদিকে বিজিবি-৩৪ ব্যাটালিয়ানের অতিরিক্ত পরিচালক আশরাফ উল্লাহ রনি স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, বুধবার রাতে মরিচ্যা চেক পোস্টে নিয়মিত তল্লাশী চলাকালে উখিয়া থেকে কক্সবাজারমুখী মালবাহী কাভার্ডভ্যানটি আটক করা হয়। তল্লাশীকালে ভ্যানের চালক ও অন্যন্যরা পালিয়ে যায় বলে বিজিবি জানিয়েছে। ডাব্লিউএফপি’র আটক ডালের দাম ১০ লাখ টাকা এবং কাভার্ডভ্যানের দাম ৮০ লাখ টাকা দেখিয়ে মামলা করা হয়েছে।

মন্তব্য