kalerkantho

সোমবার। ২৭ মে ২০১৯। ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২১ রমজান ১৪৪০

বেতাগীতে হস্তলিখন শিল্পীদের দুর্দিন

স্বপন কুমার ঢালী, বেতাগী (বরগুনা)   

২৫ এপ্রিল, ২০১৯ ১৫:৫৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বেতাগীতে হস্তলিখন শিল্পীদের দুর্দিন

বরগুনার বেতাগীতে ব্যানার ও সাইনবোর্ড লেখা শিল্পীদের চলছে দুর্দিন। বর্তমানে ব্যানার, ফেস্টুন ইত্যাদি ডিজিটাল মেশিনে তৈরি হওয়ায় হস্তলিখন শিল্পীদের দিন দিন প্রয়োজন ফুরিয়ে যাচ্ছে। ফলে এ উপজেলায় বেকার হয়ে পড়েছে ব্যানার, সাইনবোর্ড লেখার শিল্পীরা। কর্মসংস্থান হারিয়ে তারা এখন চরম অসহায়ত্বের মধ্যে জীবনযাপন করছেন। 

বেতাগী পৌর শহরের মিন্টু আর্টের  প্রোপাইটর মো. মিন্টু মিয়া বলেন, এখন দু'বেলা দু’মুঠো আহার যোগাতেই হিমশিম খেতে হচ্ছে। হস্তলিখন শিল্পীরা পরিবার পরিজন নিয়ে অর্ধাহারে-অনাহারে দিনের পর দিন মানবেতর জীবন কাটাচ্ছে। 

এমনই এক শিল্পী মো. ফিরোজ আলম স্বপন দুঃখ নিয়ে বলেন, তবুও এ ব্যাপারে কারো দৃষ্টি নেই।
 
জানা গেছে, ব্যানার ও সাইনবোর্ড লেখার এসব  শিল্পীরা অফিস আদালতের ও ব্যক্তিগত সাইন বোর্ড ,  বিজ্ঞাপন, বিশেষ করে নির্বাচনের সময় নির্বাচনী প্রচারনার কাজে হাতে লেখা ব্যানার লিখে জীবন-জীবিকা নির্বাহ করতেন। কিন্তু বর্তমানে ডিজিটাল পদ্ধতিতে লেখা প্যানা, পিভিসি মেশিন সর্বত্র চালু হওযায় হাতে লেখা ব্যানার, সাইন বোর্ডের ব্যবসায় ভাটা পড়েছে। ফলে কর্মসংস্থানের অভাবে এখানকার শিল্পীরা কাজের অভাবে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। অন্যদিকে, কাজ কমে যাওয়ায় তারা প্রতিষ্ঠানের ভাড়া ও বিদ্যুৎ বিল ধারদেনা করে পরিশোধ করতে হচ্ছে। যারা বয়সে প্রবীণ তারা অন্য পেশায় যেতে চাইলেও পারছেন না। কম বয়সী যুবকরা কেউ কেউ পেশা বদল করতে বাধ্য হচ্ছেন। 

ঢাকা আর্টের প্রোপ্রাইটর  মো. লিটন বলেন, তবে ডিজিটাল মেশিন ক্রয় করে উপজেলা পর্যায়ে পেশায় টিকে থাকা সম্ভব নয়। গুণী হশিল্পীদের আর কদর নেই। ডিজিটাল পেনা, পিভিসি যন্ত্র কেড়ে নিয়েছে ব্যানার-সাইন বোর্ড লেখা শিল্পীদের রুটি-রুজি । মেশিনে খুব অল্প সময়ে ব্যানার লেখার কাজ হওয়ায় এখানে রং, তুলি ও শিল্পীদের প্রয়োজন হয় না। তাই মানুষ সহজেই তাদের ব্যানার, সাইন বোর্ড পেয়ে যাচ্ছে। 

বলাকা আর্টের প্রবীণ হস্তলিখন শিল্পী জ্ঞান রঞ্জন বিশ্বাসের ছেলে মনি শংকর বিশ্বাস জানান, এখন সব কাজ মেশিনে হওয়ায় শিল্পীদের কোনো প্রয়োজন হয় না। এই শিল্পীদের দুর্দশার কথা বিবেচনা করে এ কর্মে টিকে থাকতে সংশ্লিষ্টরা  জরুরি  পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন বলে তাদের বিশ্বাস। 

মন্তব্য