kalerkantho

কুলাউড়ায় বিদ্যালয়ের উন্নয়ন কাজে অনিয়মের অভিযোগ

কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি   

২৩ এপ্রিল, ২০১৯ ১৯:৫৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কুলাউড়ায় বিদ্যালয়ের উন্নয়ন কাজে অনিয়মের অভিযোগ

কুলাউড়া উপজেলার কাদিপুর ইউনিয়নের মহতোছিন আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের উন্নয়ন কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ছাড়া দুই মাসের মধ্যে সংস্কার কাজ সম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত হলেও এক বছরে সেই কাজ সম্পন্ন হয়নি।  

প্রাইম ব্যাংকের চেয়ারম্যান আজম জে চৌধুরীর বাবার নামে প্রতিষ্ঠিত মহতোছিন আলী উচ্চ বিদ্যালয়টির উন্নয়ন ও সংস্কার কাজের জন্য প্রাথমিকভাবে ১৮ লাখ টাকা অনুদান প্রদান করেন। দুই মাসের মধ্যে অর্থাৎ স্বল্প মেয়াদে সেই কাজ সম্পন্ন করার নির্দেশ দেন। তাছাড়া প্রয়োজনে আরও বরাদ্ধের ঘোষণা দেন। সেই উন্নয়ন ও সংস্কার কাজ বাস্তবায়নের দায়িত্ব পান বিদ্যালয় উন্নয়ন কমিটির সভাপতি নিয়ামুল ইসলাম কমর। কোন প্রকার স্বচ্ছ টেন্ডার প্রক্রিয়ায় না গিয়ে তিনি নিজে উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনা করেন। দুই মাসের মধ্যে সংস্কার কাজ সম্পন্ন করা তো দূরের কথা এক বছর অতিবাহিত হলেও কাজ সম্পন্ন হওয়ার কোন সম্ভাবনা নেই। 

বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক ফয়জুর রহমান ছুরুক বলেন, আমার যৌথ স্বাক্ষরে টাকা উত্তোলন করা হলেও কাজের আয় ব্যয়ের বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। অফিসের কাজ দ্রুত করার কথা থাকলেও তা হয়নি। ভবনের সামনে ড্রেন নির্মাণের কথা থাকলেও তাও হয়নি। বিদ্যালয়ের দরজা জানালা দীর্ঘদিন থেকে বদলানোর নামে খোলা রাখা হয়েছে। অরক্ষিত বিদ্যালয়। শিক্ষার্থীরা দুর্ঘটনার কবলে পড়লে অভিভাবকরা আমার কাছে নালিশ নিয়ে আসে। তাদের শান্তনা দেওয়া ছাড়া আমার আর কিছু করার নেই।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয় উন্নয়ন কমিটির সভাপতি নিয়ামুল ইসলাম কমর সোমবার সন্ধ্যায় কালের কণ্ঠকে বলেন, আমার যাবতীয় কাজ শেষ, শুধু দরজার কাজ বাকী। মিস্ত্রির উদাসীনতায় ছোট খাটো দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। কেউ আহত হয়েছে আমার জানা নেই। বিদ্যালয়ের ভাঙাগড়ার কাজ করতে একটু দেরি হতেই পারে। কাজ পরিদর্শনকালে একদিন ক্লাসে গেলে শিক্ষার্থীরা দাঁড়ায়নি। তাই আমি বলেছিলাম এটা বেয়াদবির লক্ষণ। আর কিছু না। একটি মহল আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে অপপ্রচার চালাচ্ছে। 

মন্তব্য