kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৭ জুন ২০১৯। ১৩ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

কুপ্রস্তাব দিয়ে ব্যর্থ হয়ে স্কুলশিক্ষিকার বাড়িতে বখাটের হামলা

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি   

২২ এপ্রিল, ২০১৯ ২১:৩৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কুপ্রস্তাব দিয়ে ব্যর্থ হয়ে স্কুলশিক্ষিকার বাড়িতে বখাটের হামলা

মানিকগঞ্জের শিবালয়ে এক স্কুলশিক্ষিকাকে কুপ্রস্তাব দিয়ে ব্যর্থ হয়ে তার বাড়িতে হামলা করেছে মো. আব্দুল আলীম নামের এক বখাটে। হামলায় শিক্ষিকার বাবাসহ অন্তত আটজন আহত হয়েছে।

রবিবার বিকেলে উপজেলার ষাইটঘর তেওতা এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। আলিম শিবালয়ের পয়লা এলাকার কাশেম মোল্লার ছেলে এবং মাটি ও এসকেভেটর ব্যবসায়ী।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগীর চাচা বাদী হয়ে ওই বখাটেসহ ছয় জনকে আসামি করে আজ সোমবার দুপুরে শিবালয় থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। গুরুতর আহত শিক্ষিকার বাবা নুরু মল্লিক বর্তমানে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছেন।

স্কুলশিক্ষিকা লিমা আক্তার বলেন, আমি স্থানীয় সোহেল আইডিয়াল প্রি-ক্যাডেট স্কুলে শিক্ষকতা করি। বেশ কিছু দিন ধরে বখাটে আলিম আমার স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে নানাভাবে উত্যক্ত ও কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিল। পরে আমি বিষয়টি আমার বাবা মাকে জানাই। বাবা পাশের বাড়িতে এ ঘটনা জানায়। এতে আলীম ক্ষিপ্ত হয়ে সাত-আট জনের একটি দল নিয়ে আমাকে তুলে আনতে যায়। এ সময় আমি ভয়ে ঘরের ভেতরে গিয়ে দরজা বন্ধ করে দেই। আমার বাবাসহ বাড়ির লোকজন ও প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে সংঘবদ্ধ চক্রের সদস্যদের আঘাতে মা মাজেদা, চাচা আলাল, মানিক, চাচি আসমানী, ভাবি তানিয়াকে বেদম প্রহার ও নগদ অর্থ-স্বর্ণলংকার লুট-পাট করে। পরে দরজা ভেঙে আমাকে বের করে বিভিন্ন ধরনের হুমকি দিয়ে চলে যায়।

শিক্ষিকার বাবা কালের কণ্ঠকে বলেন, আলীম ইতিপূর্বে এ রকম অনেক ঘটনা ঘটিয়েছে। সে প্রভাবশালী হওয়ায় টাকার বিনিময়ে বারবার ছাড় পেয়ে যাচ্ছে। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত আলীমের সাথে মোবাইলে যোগায়োগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে কালের কণ্ঠকে বলেন, ওই দিন শিক্ষিকার বাড়ির পাশে একটি শালিসে বসেছিলাম। এ সময় উল্টো ওনারাই আমাকে ঢিল মেরেছে। আমিও এ বিষয়ে থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছি। কি কারণে তারা এমন করল জানতে চাইলে তিনি কোনো কথা বলেননি।

শিবালয় থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) আক্কাছ আলী বলেন, আমি অভিয়োগ পেয়ে ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছি। এখন বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এ বিষয়ে শিবালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মিজানুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, বিষয়টি আমি জানি না। ভুক্তভোগীরা আমার কাছে আসেনি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা