kalerkantho

বুধবার । ২২ মে ২০১৯। ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৬ রমজান ১৪৪০

খালেদা জিয়ার প্যারোল প্রসঙ্গে তোফয়েল

'প্যারোল তো বন্দি বা তার পরিবারের চাইতে হয়'

ভোলা প্রতিনিধি    

২১ এপ্রিল, ২০১৯ ১৫:৪০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



'প্যারোল তো বন্দি বা তার পরিবারের চাইতে হয়'

খালেদা জিয়ার প্যারোল প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, ভোলা ১ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, প্যারোল যে বন্দি তার চাইতে হয় বা তার পরিবারের চাইতে হয়। তাদের দল বলেছে তারা চায় না। আইনমতো তিনি সাজাপ্রাপ্ত হয়েছেন। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমাদের ওবায়দুল কাদের অসুস্থতার জন্য ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক করা হয়েছে মাহাবুব উল আলম হানিফকে। আর খালেদা জিয়া জেলে থাকায় বিএনপি করেছে খুন মামলার আসামি বিদেশে থাকা তারেক রহমানকে। পরিবারের সদস্য ছাড়া খালেদা জিয়া এবং তার ছেলে কাউকে বিশ্বাস করে না বলেও তোফায়েল আহমেদ মন্তব্য করেন। 

সাবেক ডাকসুর ভিপি আরো বলেন, আমি মনে করি তাদের পার্লামেন্টে আসা উচিত। না আসলে নির্ধারিত সময়ের পর তাদের সদস্যপদ চলে যাবে। যখন পার্লামেন্টে কথা বলার লোক থাকবে না তখন এই পার্টিকে খুঁজে পাওয়া যাবে না। বিএনপি ধীরে ধীরে ক্ষয়িষ্ণু হতে চলে চলেছে। তাদের পরিণতি হবে ন্যাপ- ভাষানীর মতো। 

আজ রবিবার সকালে ভোলা গাজিপুর রোডস্থ তোফায়েল আহমদের বাসভবনে জাতীয় শ্রমিক লীগের ভোলা সদর ও পৌর শাখার নবগঠিত কার্যকারী কমিটির পরিচিতিসভায় তিনি এসব কথা বলেন।

শ্রমিকদের অধিকার আদায়ে আগামী পহেলা মে ভালোভাবে পালনের আহ্বান জানিয়ে তোফায়েল আহমেদ আরো বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার শ্রমিকদের জন্য মজুরি কমিশন করেছে। একসময় আমাদের দেশে তৈরি পোশাক খাতে বেতন ছিল ১৬০০ টাকা, সেইটা আজ বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে আট হাজার টাকার বেশি। এটা পুরোটাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আমলে হয়েছে। 

সাবেক শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী আরো বলেন, একাদশ নির্বাচন অত্যান্ত সুন্দর ও শান্তিপূর্ণ হয়েছে। ৭০ এর নির্বাচনের মতো ভোলায় আমি নৌকার পক্ষে গণজোয়ার দেখেছি। ভোলার চারটি আসনেই মানুষ লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট দিয়েছে তাদের পছন্দের প্রার্থীকে। বিএনপি এই নির্বাচনকে বিতর্কিত করতে চায় উল্লেখ করে তিনি বলেন, কিন্তু তারা পারে নাই। কারণ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া ও ভারত, চীনসহ সকল দেশের সরকারপ্রধানরা বিজয়ী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দিত করেছে।

তোফায়েল আহমেদ আরো বলেন, আজ ভোলায় আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ। সকল সংগঠনই সুসংগঠিত। যারা বিশ্বাসঘাতকতা করে তারা কখনোই টিকবে না। তারা হারিয়ে যাবে একদিন। 

ভোলা জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি আবু তাহের মিয়ার সভাপতিত্বে এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারমম্যান আবদুল মমিন টুলু, সহসভাপতি হামিদুল হক বাহালুল মোল্লা, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মোশারেফ হোসেন, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সাম্পাদক নজরুল ইসলাম গোলদার, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, সাংগঠনিক সাম্পাদক আজিজুল ইসলাম, শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহে আলম কমিশনারসহ শ্রমিক লীগের নেতৃবৃন্দ।

মন্তব্য