kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ মে ২০১৯। ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৫ রমজান ১৪৪০

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চত্বরে সাঈদীর ওয়াজ!

উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি   

২০ এপ্রিল, ২০১৯ ২১:২৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চত্বরে সাঈদীর ওয়াজ!

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ড কার্যালয় চত্বরে উপজেলা প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আনন্দ শোভাযাত্রা উদ্বোধন করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান। উদ্বোধন করে তারা চলে যাওয়ার পরেই ওই অনুষ্ঠানে শীর্ষ যুদ্ধাপরাধী দণ্ডপ্রাপ্ত দেলওয়ার হোসেন সাঈদীর ওয়াজ বাজানো হয়।

এ সময় ক্ষুব্ধ জনতার তোপের মুখে পড়েন অনুষ্ঠানের আয়োজকরা। এ ঘটনায় উপজেলার মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। ঘটনাটি ঘটেছে আজ শনিবার বিকেলে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ড কার্যলয় চত্বরে।

জানা গেছে, উপজেলা প্রেস ক্লাব নামের একটি সংগঠন তাদের দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চত্বরে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেন। কর্মসূচির অংশ হিসেবে আনন্দ শোভাযাত্রা শুরুর প্রাক্কালে ক্ষমতাসীন দলের সংসদ সদস্য অধ্যাপক এম এ মতিন ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম হোসেন মন্টু শোভাযাত্রার উদ্বোধন করে চলে যাওযার পর পরই ওই স্থানে জামায়াত নেতা শীর্ষ যুদ্ধাপরাধী দেলওয়ার হোসেন সাঈদীর ওয়াজ মাইকে জোরে বাঁজানো হয়। এ ঘটনায় মুক্তিযোদ্ধারা ক্ষুব্ধ হয়ে পুলিশকে খবর দিলে পরে তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে মাইক জব্দ ও মাইক অপারেটর নুরুজ্জামানকে আটক করেন।

মুক্তিযোদ্ধা রবিউস সামাদ জানান, খবর পেয়ে তিনি তাদের কার্যালয়ে ওয়াজ বাজানোর সত্যতা পাই এবং পরে থানা পুলিশকে খবর দেওয়া হয়।

থানা অফিসার ইনচার্জ মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, অভিযোগ পেয়ে মাইক জব্দ ও মাইক অপারেটরকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপজেলা প্রেস ক্লাবের আহ্বায়ক মিজানুর রহমান লিটন বলেন, ওখানে সাঈদীর ওয়াজ কারা বাজালো এ বিষয়ে কিছু জানি না। সাবেক কমান্ডার ফয়জার রহমানের কাছ থেকে অফিস ব্যবহারের অনুমতি নিয়েছি।

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ উলিপুর কমান্ডের প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল কাদের জানান, ওই সংগঠনটি অফিস ব্যবহারের অনুমতি নেয়নি। তাদের বিরুদ্ধে আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা নিচ্ছি।

এ বিষয়ে সংসদ সদস্য অধ্যাপক এম এ মতিন জানান, শোভাযাত্রা উদ্বোধন করে আমি চলে এসেছি। এর পরে কি ঘটেছে তা আমি জানি না।

মন্তব্য