kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ মে ২০১৯। ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৫ রমজান ১৪৪০

কালের কণ্ঠে সংবাদ প্রকাশের পর

জলঢাকায় জোড়া নবজাতকের পাশে ইউএনও

জলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধি   

২০ এপ্রিল, ২০১৯ ১৯:০৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জলঢাকায় জোড়া নবজাতকের পাশে ইউএনও

নীলফামারীর জলঢাকায় জোড়া নবজাতকের পাশে দাঁড়ালেন ইউএনও মো. সুজাউদ্দৌলা। শনিবার ‘কালের কণ্ঠ’ পত্রিকার ৮ পৃষ্ঠায় ‘জোড়া লাগানো সন্তান নিয়ে মা-বাবার আহাজারি’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর তাদের পাশে দাঁড়ান তিনি।

কালের কণ্ঠ'র খবর পড়ে আজ শনিবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) জলঢাকা ডে-নাইট ক্লিনিকে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন শুক্রবার সন্ধ্যায় নবজাতকদ্বয়ের মা মনুফা বেগমের ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। তারা রাতেই বাড়ি চলে গেছেন। পরে তিনি নবজাতকদের দেখতে ছুটে যান উপজেলার শৌলমারী ইউনিয়নের গোপালঝাড় গ্রামে নবজাতকদের বাবা লাল মিয়ার বাড়িতে। সেখানে উপজেলা প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিকে দেখে উপস্থিত সবাই প্রথমদিকে অবাক হলেও পরে আনন্দঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

এ সময় উপস্থিত জোড়া নবজাতকদের নানা আনোয়ার হোসেন ও দাদা আমিন আলী এবং এলাকাবাসীর অনুরোধ ফেলতে না পেরে ইউএনও সুজাউদ্দৌলা তাদের নাম রাখেন লামিশা ও লাবিবা।

নাম রাখার পর নবজাতকদের নানী ফজিলা বেগম বলেন, তাদের জন্মের পর ভবিষ্যত নিয়া আমরা চিন্তায় ছিলাম। আজ ইউএনও স্যার সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দিছে। এখন তাদের চিকিৎসাও হবে, জীবনও বাঁচবে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সুজাউদ্দৌলা বলেন, আমি বিষয়টি নিয়ে ডিসি স্যারের সাথে কথা বলেছি। লামিশা-লাবিবাদের চিকিৎসার জন্য আর্থিক, প্রশাসনিক ও ব্যক্তিগত সহযোগিতা করা হবে।

উল্লেখ্য, গত ১৫ এপ্রিল জলঢাকা ডে-নাইট ক্লিনিকে সিজারিয়ানের মাধ্যমে জোড়া সন্তানের জন্ম হয়। মেয়ে সন্তানদ্বয় নিতম্বের নিচ থেকে জোড়া লাগানো। এদের পায়ুপথ একটি ও প্রস্রাবের পথও একটি।

মন্তব্য