kalerkantho

সোমবার । ২০ মে ২০১৯। ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৪ রমজান ১৪৪০

রাউজানে মুনিরীয়া যুব তবলীগ অনুসারীদের বিরুদ্ধে দুটি মামলা দায়ের

রাউজান (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

২০ এপ্রিল, ২০১৯ ০৪:৫০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাউজানে মুনিরীয়া যুব তবলীগ অনুসারীদের বিরুদ্ধে দুটি মামলা দায়ের

স্থানীয় এক আলেম ও রিক্সাচালকের ওপর হামলার ঘটনায় রাউজান থানায় দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার রাতে ও গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় মুনিরীয়া যুব তাবলীগ কমিটির অনুসারীদের বিরুদ্ধে এ মামলা দায়ের করা হয় বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে। এদিকে রাউজান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা মোজাম্মেল হকের ওপর হওয়া হামলার ঘটনাসহ গত তিন দিনে তরিক্বপন্থী সমর্থকদের বিরুদ্ধে এই নিয়ে তিনটি মামলা দায়ের হলো।

রাউজান থানার সেকেন্ড অফিসার নুরুন্নবী বলেন ‘মোহাম্মদপুর গ্রামের প্রবীণ আলেম হাফেজ মাওলানা নুরুল আবছারের উপর হামলার ঘটনায় তিনি বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার রাতে একটি মামলা করেছেন। এ মামলায় ১০  থেকে ১১ জনকে চিহ্নিত এবং আরো অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামী করা হয়েছে।’ 

নুরুল আবছার বলেন ‘গত ১৩ মার্চ তরিক্বতপন্থী নামধারী প্রায় ‘শ খানেক সন্ত্রাসী আমার বাড়ি ঘেরাও করে এবং আমাকে মারধর করে। ঘটনার খবর পেয়ে ইউপি চেয়ারম্যান বিএম জসিম উদ্দিন এসে আমাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। এতদিন আমি ভয়ে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারিনি। বৃহস্পতিবার মামলা করেছি।’ 

এদিকে গতকাল রাত ৯টার দিকে মোহাম্মদপুর গ্রামের মৃত আমীর হোসেনের ছেলে রিক্সা চালক সামশুল আলম থানায় অপর একটি মামলা দায়ের করেছেন। থানার সেকেন্ড অফিসার নুরুন্নবী বলেন ‘গত ২৭ মার্চ রাত সাড়ে ৮টার দিকে আর্যমৈত্রেয় ইনস্টিটিউশনের দক্ষিণ রাস্তার সামশুল আলমকে মারধর করে তাঁর হাত ভেঙ্গে দেয় দুবৃত্তরা। এই ঘটনায় তিনি শুক্রবার ১১ জনকে চিহ্নিত ও ৩৫ থেকে ৪০ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে মামলা করেছেন।’ 

স্থানীয় ৭নম্বর ইউপি চেয়ারম্যান বিএম জসিম উদ্দিন হিরু জানান, হাফেজ নুরুল আবছার ও সামশুল আলম নামের দুই ব্যক্তি বাদী হয়ে মুনিরীয়া তরিক্বতের অনুসারীদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে। 

প্রসঙ্গত, গত বুধবার বিকেলে বাড়ি ফেরার সময় হাফেজ বজলুর রহমান সড়কে আওয়ামী লীগ নেতা মোজ্জামেলের ওপর লাঠি নিয়ে হামলা চালায় মুনিরীয়া যুব তবলীগের ৩০-৩৫ জন সমর্থক। সে সময় তারা মোজাম্মেলকে মারধর করে বলে অভিযোগ করেন তাঁর ছোট ভাই ইমরান ও স্ত্রী নাসরিন আক্তার। পরে এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা করা হয়।

মন্তব্য