kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ মে ২০১৯। ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৫ রমজান ১৪৪০

রাজবাড়ীতে ছেলের বিরুদ্ধে মা-বাবাকে পিটিয়ে জখম করার অভিযোগ

রাজবাড়ী প্রতিনিধি    

২০ এপ্রিল, ২০১৯ ০৩:০৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজবাড়ীতে ছেলের বিরুদ্ধে মা-বাবাকে পিটিয়ে জখম করার অভিযোগ

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মা-বাবাকে পিটিয়ে জখম করার অভিযোগ পাওয়া গেছে এক ছেলে ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে। আহত মা-বাবাকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার মদাপুর ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

মাথায় জখম নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া অনিল চন্দ্র সূত্রধর (৭০) জানান, তাঁর দুই ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। সন্তানদের সবাই বিয়ে করেছে। বড় ছেলে বিনয় চন্দ্র সূত্রধর তার এক শিশু ছেলেকে নিয়ে একই বাড়ির মধ্যে আলাদাভাবে বসবাস করে। সে প্রায় তিন বছর দুবাই থাকার পর সম্প্রতি বাড়ি ফেরে। বিনয় আর্থিকভাবে সচ্ছল হলেও মা-বাবার প্রতি উদাসীন। তার স্ত্রী স্বর্ণা রানীও তাঁদের সঙ্গে ঝগড়ায় লিপ্ত হয়। 

অনিল বলেন, কয়েক দিন আগে তিনি বিনয়ের ঘরের পেছনে একটি বাঁশ পড়ে থাকতে দেখে বাঁশটির একাংশ কেটে ঘরে নিয়ে যান। গতকাল দুপুরে ওই বাঁশ খুঁজতে থাকে স্বর্ণা রানী। একপর্যায়ে সে কাটা বাঁশ দেখে উত্তেজিত হয়ে পড়ে এবং শ্বশুর-শাশুড়িকে অশ্লীল ভাষায় গালাগাল করতে থাকে। 

অনিল আরো বলেন, তিনি নতুন একটা বাঁশ কিনে দিতে চাইলেও তাতে শান্ত না হয়ে স্বর্ণা তার স্বামী বিনয়কে ডেকে আনে। একপর্যায়ে বিনয় ও স্বর্ণা লাঠি দিয়ে তার মাথায় আঘাত করে। এ অবস্থায় বিনয়ের মা বেলি রানী স্বামীকে রক্ষায় এগিয়ে যান। 

এ সময় ছেলে ও পুত্রবধূ তাঁর মাথায় আঘাত করে। তাঁদের চিত্কার শুনে ছোট ছেলে শম্ভু সূত্রধর এগিয়ে যান। তারা শম্ভুকেও আঘাত করে। পরে স্থানীয়রা তাঁদের উদ্ধার করে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে এনে ভর্তি করে। 

আহত বাবা জানান, ছেলে ও ছেলে বউয়ের আঘাতে তাঁর ও তাঁর স্ত্রী বেলি রানীর মাথায় পাঁচ থেকে ছয়টি করে সেলাই দেওয়া হয়েছে। তিনি খানিকটা সুস্থ হলেই অনিল ও স্বর্ণার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করবেন বলেও জানিয়েছেন।

মন্তব্য